৭:৫২ পিএম, ১৯ নভেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার | | ২১ রবিউল আউয়াল ১৪৪১




পহেলা বৈশাখ অসাম্প্রদায়িক বাংলার প্রতিচ্ছবি : চ.বি. উপাচার্য

১৪ এপ্রিল ২০১৯, ০৪:৪৫ পিএম | জাহিদ


এসএনএন২৪.কম : ‘নন্দিত স্বদেশ নন্দিত বৈশাখ’ - এ প্রতিপাদ্যকে ধারণ করে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্যোগে বর্ণাঢ্য আয়োজনে সংশ্লিষ্ট সকলের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে দিনব্যাপি বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে পহেলা বৈশাখ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ বাংলা নববর্ষ মহাসমারোহে উদযাপন করা হয়। 

কর্মসূচির মধ্যে ছিল দিনব্যাপি বৈশাখি ও লোকজ মেলা, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং চবি মহিলা সংসদের পরিবেশনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, রম্য বিতর্ক, পুতুল নাচ, হা-ডু-ডু, বউচি খেলা, লাঠিখেলা, নাটক, চিশতী বাউল-এর পরিবেশনায় বাউল সংগীত এবং আমন্ত্রিত ব্যান্ড দল ‘মাকসুদ ও ঢাকা’-এর পরিবেশনা।  সকাল ৯ টায় বিশ্ববিদ্যালয় জিরো পয়েন্ট ‘স্মরণ’ চত্বর থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরীর নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত হয় আনন্দ শোভা যাত্রা।  শোভাযাত্রা শেষে শহীদ আবদুর রব হল মাঠে মূল মে  অনুষ্ঠিত হয় উদ্বোধনী অনুষ্ঠান। 

অনুষ্ঠান উদ্বোধন করেন এবং ভাষণ দেন পহেলা বৈশাখ উদযাপন কমিটির আহবায়ক চবি উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী।  এতে শুভ্চ্ছো বক্তব্য রাখেন পহেলা বৈশাখ উদযাপন কমিটির সমন্বয়ক চ.বি. মাননীয় উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. শিরীণ আখতার, স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ও অনুষ্ঠান উদযাপন কমিটির সদস্য-সচিব প্রফেসর মোহাম্মদ আলী আজগর চৌধুরী। 

এ ছাড়াও বক্তব্য রাখেন চবি শিক্ষক সমিতির সভাপতি প্রফেসর মো. জাকির হোসেন, ডিনবৃন্দের পক্ষে কলা ও মানবিদ্যা অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. মো. সেকান্দর চৌধুরী এবং রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) জনাব কে এম নুর আহমদ।  অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন ডেপুটি রেজিস্ট্রার (তথ্য) জনাব দিবাকর রড়ুয়া। 

উপাচার্য তাঁর ভাষণে উপস্থিত সকলকে বাংলা নববর্ষের প্রাণঢালা শুভেচ্ছা ও আন্তরিক অভিনন্দন জানান।  তিনি বলেন, পহেলা বৈশাখ একটি অসাম্প্রদায়িক বাংলার প্রতিচ্ছবি; পুরনো দিনের সকল জীর্ণতা, ক্লান্তি, অসত্য এবং অন্ধকারকে পেছনে ফেলে মঙ্গল আলোর প্রদীপ জ্বেলে নববর্ষের নবতর বার্তা নিয়ে আসে পহেলা বৈশাখ।  তাই এই দিনটিতে বাঙালির হৃদয়ে নব উচ্ছ্বাসে জাগ্রত হয় অফুরন্ত আনন্দবোধ ও সম্মিলন চেতনা। 

উপাচার্য বাংলা নববর্ষের সূচনা ও তাৎপর্য আলোকপাত করে বলেন, পহেলা বৈশাখ বাঙালির প্রাণস্পন্দনে উচ্চারিত হওয়া এক মহাকাব্য; যেখানে রচিত হয়েছে আবহমান বাঙলার জীবনচরিত।  তিনি বলেন, দেশ ও দেশের মানুষের প্রতি অকৃত্রিম ভালোবাসা এবং মহান মুক্তিযুদ্ধের অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক চেতনায় সমুন্নত থেকে হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি, রাজনীতির মহাকবি, স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশের মহান স্থপতি, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে বঙ্গবন্ধু তনয়া আধুনিক বাংলাদেশের রূপকার প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ বিশ্ব নন্দিত।  তাই এবারের বৈশাখ নন্দিত বৈশাখ।  উপাচার্য নববর্ষের মহামিলনোৎসবের এ শুভদিনে জঙ্গি-সন্ত্রাসসহ সকল অপশক্তি-অপপ্রচার সংহার-নিধন করে সত্য-সুন্দর-কল্যাণ-মঙ্গল প্রতিষ্ঠায় তরুণ সমাজকে বৈশাখকে ধারণ করার উদাত্ত আহবান জানান। 

জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনের মাধ্যমে অনুষ্ঠান সূচিত হয়।  অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুষদ সমূহের ডিন, হলসমূহের প্রভোস্ট, বিভাগীয় সভাপতি এবং ইনস্টিটিউট ও গবেষণা কেন্দ্রের পরিচালকবৃন্দ, সহকারী প্রক্টরবৃন্দ, শিক্ষক সমিতি-অফিসার, সমিতি-কর্মচারী সমিতি ও কর্মচারী ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ, অফিস প্রধানবৃন্দ, চ.বি. মহিলা সংসদের সভানেত্রী ও অন্যান্য কর্মকর্তাবৃন্দ, ক্যাম্পাসস্থ স্কুল সমূহের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীবৃন্দ, প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ,  বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীবৃন্দ এবং বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।