৫:৫৯ পিএম, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, সোমবার | | ২৩ মুহররম ১৪৪১




বিএনসিসি’র হাইকিং কর্মসূচিতে চবি উপাচার্য

ক্যাডেটদের আত্মশক্তিতে বলীয়ান হয়ে দেশের যেকোন প্রয়োজনে প্রস্তুত থাকার আহ্বান

১৯ এপ্রিল ২০১৯, ১০:৫২ এএম | জাহিদ


এসএনএন২৪.কম :  চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় বিএনসিসি’র উদ্যোগে সেনা ও বিমান শাখার ক্যাডেটদের দিনব্যাপী বার্ষিক ‘হাইকিং কর্মসূচি’ উদ্বোধনী অনুষ্ঠান ১৮ এপ্রিল চবি বঙ্গবন্ধু চত্বরে অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে কর্মসূচির উদ্বোধন করেন এবং ভাষণ দেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী।  এসময় বক্তব্য রাখেন বিএনসিসি’র ব্যাটালিয়ন কমান্ডার ও সমন্বয় কর্মকর্তা লেফটেন্যান্ট কর্ণেল ড. এম শফিকুল আলম। 

উপাচার্য তাঁর ভাষণে ক্যাডেটসহ উপস্থিত সকলকে আন্তরিক শুভেচ্ছা জানান।  তিনি বলেন, সুন্দর মনের মানুষ হতে হলে অবশ্যই শারীরিকভাবে সুস্থ্যতার অধিকারী হতে হবে।  আর এই ধরণের হাইকিং প্রোগ্রাম তরুণ-বৃদ্ধ সকলকেই শারীরিকভাবে সুস্থ্য থাকতে সহায়তা করে।  তিনি বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু তনয়া অধুনিক বাংলাদেশের রূপকার প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা বিএনসিসি-কে প্রাতিষ্ঠানিকভাবে স্বীকৃতি দিয়ে একটি শক্তিশালী প্রতিষ্ঠানে পরিণত করেছে।  আর এই প্রতিষ্ঠান থেকে সারা দেশে বিপুল সংখ্যক ক্যাডেট প্রশিক্ষণ গ্রহণ করছে। 

উপাচার্য আরও বলেন এই সকল তরুণ মেধাবী ক্যাডেট তাদের মেধা-দক্ষতা-যোগ্যতা দিয়ে আগামীর বাংলাদেশকে পথ দেখাবে।  উপাচার্য ক্যাডেটদের আত্মশক্তিতে বলীয়ান হয়ে সত্য, সুন্দর ও ন্যায়ের পথে দৃঢ় অবস্থানে থেকে দেশের যেকোন প্রয়োজনে নিজেদের প্রস্তুত রাখার আহ্বান জানান।  উপাচার্য কর্মসূচির সার্বিক সাফল্য কামনা করেন। 

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, ১২ বিএনসিসি ব্যাটালিয়ন কমান্ডার মেজর প্রফেসর ড. মো. শওকতুল মেহের, বিএনসিসি সেনা শাখার কোম্পানি কমান্ডার প্রফেসর ড. বায়েজিদ মাহমুদ খান, বিএনসিসি’র সেনা শাখার পিইউও ও সহযোগী অধ্যপক জনাব শহিদুল হক, বিমান শাখার পিইউও ও উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক জনাব রূমঝুম ভূইয়া, সামরিক প্রশিক্ষক কর্পোরাল শরীফ।  অনুষ্ঠানে প্যারেড প্রদান করেন বিএনসিসি’র সেনা শাখার সিইউও জনাব মো. মিছবাহুর রহমান।  হাইকিং কর্মসূচিতে চবি সেনা ও বিমান শাখার ৪০ জন ক্যাডেট অংশগ্রহণ করে। 


keya