৫:৩১ পিএম, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, সোমবার | | ২৩ মুহররম ১৪৪১




চবি উপাচার্যের সাথে মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টার সৌজন্য সাক্ষাৎ

২৫ এপ্রিল ২০১৯, ০৩:৪০ পিএম | জাহিদ


এসএনএন২৪.কম : মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা ও ‘Binary University of Management & Entrepreneurship’ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা Professor Joseph Adaikalam এবং উক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের Binary Graduate School-এর ডিন Associate Professor Dr. Asif Mahbub Karim ২৫ এপ্রিল চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরীর সাথে তাঁর অফিস কক্ষে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন এবং এক মতবিনিময় সভায় মিলিত হন। 

এসময় চবি’র আইন অনুষদের ডিন প্রফেসর এ বি এম আবু নোমান এবং যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক জনাব মাধব চন্দ্র দাস উপস্থিত ছিলেন।  

উপাচার্য অতিথিবৃন্দকে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অনিন্দ্য সুন্দর সবুজ ক্যাম্পাসে স্বাগত জানান এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক ও প্রশাসনিক বিভিন্ন দিক আলোপাত করে বলেন, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ৭৩’র এ্যাক্ট অনুযায়ী পরিচালিত দেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের অত্যন্ত উচুমার্গের একটি উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।  মহাকালের মহানায়ক জাতির জনক বঙ্গবন্ধু তনয়া আধুনিক বাংলাদেশের রূপকার প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার শিক্ষাদর্শন ‘আধুনিক বিজ্ঞানমনস্ক গুণগত শিক্ষা’র সঠিক বাস্তবায়নে বিশ্ববিদ্যালয় বর্তমান প্রশাসন একাডেমিক, প্রশাসনিক এবং ভৌত অবকাঠামো উন্নয়নের বিভিন্ন উদ্যোগ এখন দৃশ্যমান। 

সম্মানিত শিক্ষক-গবেষকদের অধিকতর গবেষণা কার্যক্রম পরিচালনার জন্য বর্তমান প্রশাসন বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা খাতকে বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে এ খাতে সর্বোচ্চ বরাদ্দ প্রদান করেছে।  তিনি বলেন, উন্নত বিশ্বের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে উচ্চ শিক্ষা ও গবেষণা বিষয়ে বিবিধ চুক্তি সম্পাদন হয়েছে, যার ফলে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীবৃন্দের বিশ্বের বিভিন্ন উচুমার্গের বিশ্ববিদ্যালয়ে স্কলারশীপের মাধ্যমে পড়ালেখা ও গবেষণার সুযোগ অবারিত হয়েছে। 

উপাচার্য আরও বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় বর্তমান প্রশাসনের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় এবং দূরদর্শী শিক্ষাবান্ধব বিভিন্ন উদ্যোগের ফলে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় এখন দেশের শীর্ষ বিশ্ববিদ্যালয়ে অবস্থান করছে।  পরে অতিথিবৃন্দ উপাচার্যকে সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করেন এবং উপাচার্যও অতিথিবৃন্দকে সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করেন।  

অতিথিবৃৃন্দ উপাচার্যের বক্তব্য শুনে এবং চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষা-গবেষণা, পড়ালেখার নান্দনিক পরিবেশ সম্পর্কে জেনে অত্যন্ত আগ্রহ প্রকাশ করেন। 


keya