১:০৪ পিএম, ২২ আগস্ট ২০১৯, বৃহস্পতিবার | | ২০ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০




শেখ হাসিনা তাত পল্লীর শিবচর অংশে প্রশাসনের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান

১০ মে ২০১৯, ০৮:২৭ পিএম | জাহিদ


মাতুব্বর শফিক স্বপন, মাদারীপুর : প্রায় ১৯ শ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মান হতে যাওয়া পদ্মা সেতু সংলগ্ন ’শেখ হাসিনা তাত পল্লী’র মাদারীপুরের শিবচর অংশে আবারো অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করেছে  প্রশাসন। 

শুক্রবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত ১৫ টি অবৈধ ঘরবাড়িসহ গত ৩ দিনে আরো ৩০ টি ঘরবাড়ি ও স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়।  সম্প্রতি দুদকের একটি টিম তাঁত পল্লী ও পদ্মা সেতুর রেল লাইন সম্প্রসারন এলাকায় মাদারীপুরের শিবচর ও শরীয়তপুরের জাজিরা অংশ পরিদর্শন করে গড়ে উঠা অবৈধ স্থাপনা দেখে ক্ষুদ্ধ মত প্রকাশ করেন ও ব্যবস্থা গ্রহনের ঘোষনা দেন। 

জানা যায়, গত বছরের ১ নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ’শেখ হাসিনা তাত পল্লী’র ভিত্তিপ্রস্তর করেন।  এ প্রকল্পের মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ১৯ শ ১১ কোটি টাকা।   প্রকল্পটির জন্য জেলার শিবচর উপজেলার কুতুবপুরে ৬০ একর ও  শরীয়তপুরের জাজিরার নাওডোবায় ৪৮ একর জায়গা নির্ধারন করা হয়েছে ।  এ প্রকল্পে অসংখ্য ৬ তলা বিশিষ্ট ভবনে প্রত্যেক তাতীর জন্য ৬ শ ফুটের কারখানা ও ৮ শ ফুটের মধ্যে আবাসন সুবিধা থাকবে।  সরকারের পক্ষ থেকে সুতা রংসহ কাচামালের সুবিধা দেয়া হবে।  নির্মান হবে আন্তঃজার্তিক মানের শোরুম।  প্রশিক্ষন কেন্দ্র।  তাতীদের ছেলে মেয়েদের জন্য থাকবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। 

প্রধানমন্ত্রীর ভিত্তিপ্রস্তরের পর ওই জমির মালিক ও এক শ্রেনীর দালাল চক্র প্রকল্প এলাকায় সরকারের কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিতে শত শত ঘরসহ স্থাপনা নির্মান ও গাছ লাগানো শুরু করে।  এনিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রচার হলে সম্প্রতি চীফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী প্রকল্প এলাকা পরিদর্শন করে উভয় জেলা উপজেলা প্রশাসনের ভূমিকায় তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেন।  এরপর গত ২৭ জানুয়ারি ৭২ ঘন্টার সময় বেধে দিয়ে অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে নিতে  মাইকিং করে প্রশাসন।  এরপরপরই মাদারীপুরের শিবচরের কুতুবপুর উচ্ছেদ অভিযান শুরু করে প্রথম দিনেই ৮০ টি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে প্রশাসন। 

৩১ জানুয়ারি তাত বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ সাদাকাতুল বাড়ির নেতৃত্বে ৩ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি প্রকল্প এলাকা পরিদর্শন করে অবৈধ কার্যক্রমের সত্যতা পান।  এরইমাঝে সংসদীয় কমিটির সভায় প্রকল্পটি স্থানান্তরের ঘোষনাও আসে।   এরপর জাজিরার নাওডোবা অংশের কিছু ঘর বাড়ি সরিয়ে নেয় স্থানীয়রা।  গত ৭ মে দুর্নিতী দমন কমিশনের ফরিদপুর সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক কমলেশ মন্ডলের নেতুর্ত্বে দুদকের একটি টিম তাঁত পল্লীর মাদারীপুরের শিবচর ও শরীয়তপুরের জাজিরা অংশ পরিদর্শন করেন।  পরিদর্শনকালে এই প্রকল্পসহ পদ্মা সেতুর রেল লাইন সম্প্রসারন এলাকায় নির্মিত শত শত অবৈধ বিভিন্ন ঘর বাড়ি ও বাগানসহ বিভিন্ন অবৈধ স্থাপনা সরেজমিনে ঘুরে দেখে ক্ষোভ প্রকাশ করেন ও ব্যাবস্থা নেওয়ার ঘোষনা দেন। 

শুক্রবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ আল নোমানের নেতৃর্ত্বে পুলিশের একটি বিশাল টিম তাঁত পল্লী এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে ১৫ টি অবৈধ ঘরবাড়িসহ স্থাপনা উচ্ছেদ করে।  এর আগে বুধবার ও বৃহস্পতিবার অভিযান চালিয়ে আরো প্রায় ১৫ টি অবৈধ ঘরবাড়িসহ স্থাপনা উচ্ছেদ করেছে প্রশাসন।   হাজার হাজার গাছপাল উচ্ছেদে অভিযান কার্যক্রম চলবে বলে জানিয়েছেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট। 

সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ আল নোমান বলেন, শেখ হাসিনা তাঁত পল্লীর জায়গায় অবৈধ ঘরবাড়ি নির্মান করে সরকারের কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিতে তৎপর ছিল দালাল চক্র।  আমরা শিবচর অংশে প্রতিনিয়ত অভিযানের মাধ্যমে এসকল অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করছি।  আমাদের এ কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।