৮:৫৬ এএম, ২৩ মে ২০১৯, বৃহস্পতিবার | | ১৮ রমজান ১৪৪০




রানীশংকৈলের সোহেল রানা বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে সহ সভাপতি

১৪ মে ২০১৯, ০৯:৫০ এএম | জাহিদ


সফিকুর ইসলাম শিল্পী, রাণীশংকৈল (ঠাকুরগাঁও) : ‘নবীনদের মেধা দেশ গড়ার কাজে লাগুক, স্বাধীনতার ম‚লমন্ত্রে বিধৌত হোক নতুন প্রজন্মের বিবেক ও চেতনা।  অনাগত প্রজন্মের লড়াই হোক সা¤প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে আর মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষে। 

বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বুকে ধারণ করে, সব অশুভ শক্তিকে পেছনে ফেলে, মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে সমুন্নত রেখে, দেশগড়ার প্রত্যয়ে এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ ছাত্রলীগএমন প্রত্যাশা রানীশংকৈলের মেধাবী ছাত্র সোহেলে রানার।  বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে মনোনীত হলেন ঠাকুরগাঁয়ের রানীশংকৈলেরসহদোর গ্রামের সোহেল রানা।  (১৩ মে) সোমবার ঘোষিত ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে তিনি সহ সভাপতির পদ পেয়েছেন। মেধাবী ছাত্রনেতা সোহেলের বাড়ী ঠাকুরগাঁও জেলার রাণীশংকৈল উপজেলায়।  বাবা ব্যবসায়ী শাহ আলম সরকার আওয়ামী রাজনীতির সাথে জড়িত রয়েছেন দীর্ঘদিন।  সোহেল রানা জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রাণীবিদ্যায় সম্মান ও স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করেছেন।  তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের রাজনীতিতে অত্যন্ত পরিশ্রমী ও ত্যাগী নেতা হিসেবে পরিচিত। 

বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের কমিটিতে প্রথমে উপ-সম্পাদক এবং পরবর্তীতে সহ-সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন। ছাত্ররাজনীতির পাশাপাশি সোহেল বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের সাথে জড়িত রয়েছেন।  তিনি ঢাকাস্থ ঠাকুরগাঁও জেলা সোসাইটির ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক এবং ঠাকুরগাঁও জেলা ছাত্রকল্যাণ পরিষদ, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়” এর সমন্বয়ক। 

এ প্রসঙ্গে সোহেল রানা বলেন, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের প্রতিটি নেতাকর্মীর মধ্যে আছে তরুণ্য মুজিবের নান্দনিকতা ও আদর্শ, আছে কাজী নজরুলের বাঁধ ভাঙার শৌর্য, আছে ক্ষুদিরামের প্রত্যয়, আছে সুকান্তের অবিচল চেতনা।  তাই তো বাংলাদেশ ছাত্রলীগ শিক্ষার অধিকার রক্ষার পাশাপাশি জাতীয় রাজনৈতিক ও সামাজিক স্বার্থ সুরক্ষায় সবসময় মঙ্গলপ্রদীপের আলোকবর্তিকা হয়ে ছড়িয়ে পড়ে চার দিগন্তে।  জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশকে এগিয়ে নিতে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন।  আমি সেই সংগ্রামের একজন সৈনিক হিসেবে নিজেকে নিবেদিত রেখেছি ।  সংগঠনকে গতিশীল করতে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধারণ করে দেশের জন্য কাজ করে যেতে চাই । 

তিনি আরও বলেন, শিক্ষা, শান্তি ও প্রগতির পতাকাবাহী সংগঠন, জাতির মুক্তির স্বপ্নদ্রষ্টা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাতে গড়া, জীবন ও যৌবনের উত্তাপে শুদ্ধ সংগঠন, সোনার বাংলা বিনির্মাণের কর্মী গড়ার পাঠশালা বাংলাদেশ ছাত্রলীগ। বিদ্যার সঙ্গে বিনয়, শিক্ষার সঙ্গে দীক্ষা, কর্মের সঙ্গে নিষ্ঠা, জীবনের সঙ্গে দেশপ্রেম এবং মানবীয় গুণাবলির সংমিশ্রণ ঘটিয়ে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ অতিক্রম করেছে পথচলার ৬৮ বছর।  ১৯৪৮ সালের ৪ জানুয়ারি সময়ের দাবিতেই বাংলাদেশ ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠা করেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। 

সময়ের প্রয়োজন মেটাতেই এগিয়ে চলা বাংলাদেশ ছাত্রলীগের।  জন্মের প্রথম লগ্ন থেকেই ভাষার অধিকার, শিক্ষার অধিকার, বাঙালির স্বায়ত্তশাসন প্রতিষ্ঠা, দুঃশাসনের বিরুদ্ধে গণঅভ্যুত্থান, সর্বোপরি স্বাধীনতা ও স্বাধিকার আন্দোলনের ছয় দশকের সবচেয়ে সফল সাহসী সারথি বাংলাদেশ ছাত্রলীগ। 

উল্লেখ্য, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানি ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করেছেন। তাদের স্বাক্ষরিত কমিটির তালিকা গণমাধ্যমের হাতে পৌঁছেছে। সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভনের সঙ্গে সহ-সভাপতি পদের রয়েছেন ৬১ জন।  সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানির সঙ্গে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রয়েছেন ১১ জন। সাংগঠনিক সম্পাদক পদে রয়েছেন মোট ১১জন।  ক্রীড়াবিষয়ক সম্পাদ হয়েছেন আল-আমীন সিদ্দিক সুজন। 

তার সঙ্গে উপ -ক্রীড়া সম্পাদক পদে রয়েছেন আরও তিনজন। বিজ্ঞানবিষয়ক সম্পদক সাদুন মোস্তফার রঙ্গে উপ-বিজ্ঞান বিষয়ক সম্পাদক রয়েছেন আরও চারজন। আন্তর্জাতিকবিষয়ক সম্পাদক মোহাম্মদ রাকিনুল হক চৌধুরী।  যার কমিটিতে উপ-সম্পাদক হিসেবে রয়েছেন আরো পাঁচজন। পাঠাগার সম্পাদক হয়েছেন জাভেদ হোসেন।  সঙ্গে রয়েছেন উপ-সম্পাদক হিসেবে পাঁচজন। তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক পল­ব কুমার বর্মন।  এই কমিটিতে উপ-সম্পাদক হয়েছেন আরো তিনজন। তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ক কমিটিতে সম্পাদক হয়েছেন শাকিল আহমেদ জুয়েল। 

এই কমিটিতে ‍উপ-সম্পাদক হয়ে আরও রয়েছেন ৫ জন।  ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক তাজ উদ্দিন।  তার সঙ্গে রয়েছেন ৪ জন উপ-সম্পাদক।  গণশিক্ষা বিষয়ে সম্পাদক হয়েছেন আবদুল্লাহিল বারী।  উপসম্পাদক রয়েছেন ৩ জন।  ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সম্পাদক হয়েছেন ইমরান জমাদ্দার।  সঙ্গে উপ-সম্পাদক রয়েছেন ৪ জন।  স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা সেবা বিষয়ক সম্পাদক হয়েছেন শাহরিয়ার ফেরদৌস হিমেল।  সঙ্গে রয়েছেন ৪ উপসম্পাদক।  সাহিত্য বিষয়ক সম্পাদকের দায়িত্ব পেয়েছেন আসিফ তালুকদার।  সঙ্গে রয়েছেন ৩ উপসম্পাদক। প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক হয়েছেন হায়দার মোহাম্মদ জিতু।  সঙ্গে রয়েছেন ৩ জন উপ-সম্পাদক। কর্মসংস্থান বিষয়ক সম্পাদক পদে দায়িত্ব পেয়েছেন মোহাম্মদ রণি। 

এছাড়া এই কমিটিতে উপ-সম্পাদক হয়েছেন ৪ জন। নাট্য ও বিতর্ক বিষয়ক সম্পাদক হয়েছেন জুয়েল মোল্লা।  তার সঙ্গে রয়েছেন ৩ জন উপ-সম্পাদক।  বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় বিষয়ক সম্পাদক হয়েছেন আসিফ ইকবাল অনিক।  সঙ্গে রয়েছেন ৫ উপ-সম্পাদক। আপ্যায়ন সম্পাদক হয়েছেন আশরাফুল ইসলাম ফাহাদ।  সঙ্গে রয়েছেন ৪ উপ-সম্পাদক। মেহেদী হাসান তাপস পেয়েছেন মুক্তিযুদ্ধ ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদকের দায়িত্ব।  সঙ্গে রয়েছেন চার উপ-সম্পাদক। মানব সম্পদ উন্নয়দ সম্পাদক হয়েছেন নাহিদ হাসান শাহিন।  সঙ্গে রয়েছেন ৪ উপ-সম্পাদক। ছাত্র-বৃত্তি সম্পাদক হযেছেন আতাউল গনি কৌশিক।  সঙ্গে রয়েছে ৪ উপ-সম্পাদক। কৃষি-শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদকের দায়িত্ব পেয়েছেন মাকসুদুর রহমান মিঠু।  সঙ্গে রয়েছেন উপ-সম্পাদক পদে আরও তিন জন।  কর্মস‚চি ও পরিকল্পনা সম্পাদক হয়েছেন সাদ্দাম হোসেন।  সঙ্গে রয়েছেন আরও চার জন। সহ-সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পেয়েছেন মোট ২৩ জন। কমিটির অন্তত ১২ জন নির্বাহী সদস্যের তালিকাও গণমাধ্যমের হাতে রয়েছে। 

ছাত্রলীগের সর্বশেষ দুদিনব্যাপী সম্মেলন হয় ২০১৮ সালের ১১ ও ১২ মে।  এর প্রায় দেড় মাস পর গত বছরের ৩১ জুলাই শোভনকে ছাত্রলীগের সভাপতি ও রাব্বানীকে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়।  ওই দিন গণভবন থেকে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের তাদের নাম ঘোষণা করেন। একই দিন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক এবং ঢাকা মহানগরীর দুটি ইউনিটের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক নির্বাচন করা হয়।