৭:৫০ পিএম, ৪ জুন ২০২০, বৃহস্পতিবার | | ১২ শাওয়াল ১৪৪১




কক্সবাজারে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত-৩

১৪ মে ২০১৯, ০৯:৫৮ এএম | জাহিদ


এসএনএন২৪.কম : কক্সবাজার ও টেকনাফে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ তিনজন নিহত হয়েছেন।  সোমবার (১৩ মে) রাতে এসব ‘বন্দুকযুদ্ধ’ হয়।  কক্সবাজারে নিহত সৈয়দুল মোস্তফা ওরফে ভুলু ইয়াবা ব্যবসায়ী এবং টেকনাফে নিহত দুইজন মানবপাচারকারী। 

বিস্তারিত আমাদের প্রতিনিধিদের পাঠানো খবরে :

কক্সবাজার :

জেলা শহরের পাহাড়তলী এলাকায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ সৈয়দুল মোস্তফা ওরফে ভুলু নামে এক ইয়াবা ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন।  সোমবার (১৩ মে)  রাত আড়াইটার দিকে পাহাড়তলীর কাটা পাহাড় এলাকায় এ ‘বন্দুকযুদ্ধ’ হয়।  ঘটনা ঘটে। 

নিহত ভুলু, কক্সবাজার শহরের পাহাড়তলী এলাকার জহির হাজির ছেলে।  তার বিরুদ্ধে থানায় মাদক, অস্ত্রসহ একাধিক  মামলা রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। 

কক্সবাজার সদর মডেল থানার ওসি মো. ফরিদ উদ্দিন খন্দকার জানান, রাত আড়াইটার দিকে ভুলুকে নিয়ে শহরের কাটা পাহাড় এলাকায় অস্ত্র উদ্ধারে যায় পুলিশ।  এ সময় ভুলুর নিজস্ব বাহিনী পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি করে।  আত্মরক্ষার্থে পুলিশও পাল্টা গুলি ছোড়ে।  

একপর্যায়ে সন্ত্রাসীরা পিছু হটে।  এসময় ভুলুকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখা যায়।  তাৎক্ষণিক তাকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। 

তিনি জানান, ঘটনাস্থল থেকে ৪’শ পিস ইয়াবা, একটি দেশীয় তৈরি বন্দুক, দুই রাউন্ড কার্তুজ ও ৬টি খালি খোসা উদ্ধার করা হয়েছে।  

‘ভুলু’ কক্সবাজার শহরের শীর্ষ সন্ত্রাসী।  শহরের পূর্ব পাহাড়তলী এলাকায় সশস্ত্র শক্তিশালী বাহিনী গঠন করে দীর্ঘদিন ধরে সে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালিয়ে আসছিল বলেও জানান ওসি। 

টেকনাফ :

জেলার টেকনাফ উপজেলায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই মানবপাচারকারী নিহত হয়েছে।  সোমবার (১৩ মে) রাত সাড়ে ১২টার দিকে ‍উপজেলার শাপলাপুর মেরিন ড্রাইভ সড়কে এ ঘটনা ঘটে। 

নিহতেরা হলেন- টেকনাফ শামলাপুর ২৩ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পের আব্দুর রহিমের ছেলে আজিম উল্লাহ (২২) ও উখিয়ার জামতলী ১৫ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পের মৃত রহিম আলীর ছেলে আব্দুস সালাম (৫২)। 

টেকনাফ থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শাপলাপুর মেরিন ড্রাইভ সড়কে অভিযান চালায় পুলিশ সদস্যরা।  এসময় পুলিশের সঙ্গে দুই মানবপাচারকারী নিহত হয়েছে।  এ ঘটনায় টেকনাফ থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) জহিরুল ইসলাম, কনস্টেবল মোবারক হোসেন, খাইরুল ও মানিক মিয়া আহত হয়েছেন।  

তিনি জানান, নিহত দু’জনই মানবপাচারকারী।  ঘটনাস্থল কাছ থেকে দু’টি দেশীয় তৈরি অস্ত্র ও ৫ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়েছে।