৩:৫৫ পিএম, ২২ জুলাই ২০১৯, সোমবার | | ১৯ জ্বিলকদ ১৪৪০




বাশঁখালীতে ড্রেনেজ সংস্কারকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের সংঘর্ষ

১৬ মে ২০১৯, ১১:৫৯ এএম | জাহিদ


সৈকত আচার্য্য, বাঁশখালী (চট্টগ্রাম) : চট্টগ্রামের বাশঁখালী উপজেলার কালীপুর ইউনিয়নের রামদাস মুন্সির হাট এলাকায় ড্রেনেজ সংস্কারকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের সংঘর্ষ ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। 

এ ঘটনায় কমপক্ষে ১৫ জন আহত হয়েছে।  আহতদের মধ্যে ৩ জনকে চমেক হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।  গত বুধবার বিকালে সংঘঠিত এ ঘটনায় এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত (১৬ মে) বৃহস্পতিবার সাড়ে ১১ টা কোন পক্ষই মামলা দায়ের করেনি বলে ‘সংবাদ’কে জানিয়েছেন বাঁশখালী থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. কামাল হোসেন।   

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, কালীপুর ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যোগে ৪০ দিনের কর্মসূচীর আওতায় রামদাস মুন্সির হাটের ঋষিধাম সংলগ্ন প্রধান সড়কের ড্রেনেজ পরিস্কার করার জন্য পরিষদের পক্ষ থেকে ব্যবসায়ীদের জানান স্থানীয় চেয়ারম্যান আ.ন.ম. শাহাদাত আলম। 

এ কাজে কর্মসূচীর লোক সহ যে সব ব্যবসায়ীর পাশে দোকান রয়েছে তারা সহ এ সহযোগিতা করার জন্য সিদ্ধান্ত মোবাবেক কাজ করতে গেলে বুধবার বিকালে প্রকল্প কমিটির সভাপতি ও কালীপুর ২নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আনোয়ারুল আজিম গং ব্যবসায়ী ও দোকান মালিক সৈয়দুল আলম গংয়ের মধ্যে এ কাজ নিয়ে বিরোধ ও কথা কাটাকাটির জের ধরে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।  এ সময় উভয় গ্রুপের কমপক্ষে ১৫ জন আহত হয়। 

আহতদের মধ্যে জোবাইর ইসলাম (২৮), মো. শাহেদ (২২) ও মোক্তার আহমদ (৭০)কে চমেক হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।  এছাড়াও ইউপি সদস্য আনোয়ারুল আজিম (৩৬), মোরশেদ আলম (২৬), মো. এনাম (৩৫), মো. আরাকান (২৪), শাহেদুল ইসলাম (২০), হাজী আবদুস সাত্তার (৬৫), সৈয়দুল আলম (৪৫) ও নুরুল আলম (৫৬) বাশঁখালী হাসপাতালে চিকিৎসা নেন বলে জানান দায়িত্বরত চিকিৎসক ডা. জুবুরিয়া শারমিন চৌধুরী। 

অপরদিকে এ ঘটনা দেখতে গিয়ে আহত হয় মো. এরশাদ (৩২) নামে এক ক্রীড়া সংগঠক।  সে বর্তমানে একটা বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।  

ঘটনার ব্যাপারে দোকানের মালিক ও সৈয়দুল আলমের বড় ভাই ডাক্তার ফারুক আহমদ বলেন, ‘সরকারি ভাবে ডেন সংস্কার করা হচ্ছে তাতে কোন সমস্যা হয়নি।  অযথা কথা কাটাকাটির জের ধরে আমার ভাইদের উপর হামলা করা হয়েছে। ’ 

কালীপুর ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যোগে ৪০ দিনের কর্মসুচীর প্রকল্প কমিটির সভাপতি ও ২নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আনোয়ারুল আজিম বলেন, ‘আমাদের নিয়োগ করা লোকজন সব জায়গায় ঠিক মত কাজ করে এলেও তাদের দোকানের পাশে কাজ করতে যাওয়া মাত্রই বাধা দেয় এবং আমাদের ওপর হামলা চালায়।  আমরা প্রশাসনকে অবহিত করেছি তারা এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেবেন। ’

কালীপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আ.ন.ম. শাহাদাত আলম বলেন, ‘এ দোকানদারদের ড্রেনেজ এর কারণে প্রতি বছর সাধারণ জনগণ কষ্ট পায়।  অথচ সরকারি এ কাজ করতে গিয়ে আমার লোকজনের ওপর হামলা করে আহত করে তারা।  এ ব্যাপারে প্রশাসনিক ভাবে যেটা করনীয় সেটা আমরা করব। ’   

বাশঁখালী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো: কামাল হোসেন জানান, ‘পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।  এ ঘটনায় এখনো পর্যন্ত কেউ এজাহার কিংবা কোন অভিযোগ দায়ের করেনি।  এজাহার ও অভিযোগের প্রেক্ষিতে তদন্তক্রমে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। ’