১:৩৩ এএম, ১৯ আগস্ট ২০১৯, সোমবার | | ১৭ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০




নবনির্মিত ‘স্টুডেন্টস ক্যাফেটোরিয়া’ উদ্বোধনকালে চবি উপাচার্য

শিক্ষার্থীদের সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধিতে চবি প্রশাসন কাজ করছে

২৮ মে ২০১৯, ০৩:৩৩ পিএম | জাহিদ


এসএনএন২৪.কম : চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী বলেছেন, বিশ্ববিদ্যালয় হলো অবাধ জ্ঞান চর্চার উন্মুক্ত ক্ষেত্র।  যে বিশ্ববিদ্যালয়ের জ্ঞান চর্চার ক্ষেত্র যতবেশি বিস্তৃত সে বিশ্ববিদ্যালয় জ্ঞান-গবেষণায় ততবেশি সমৃদ্ধ।  আর একটি সমৃদ্ধ বিশ্ববিদ্যালয় দেশের উন্নয়ন-অগ্রগতির অন্যতম অনুষঙ্গ।  ২৮ মে চবি ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদের ছাত্র-ছাত্রীদের বহুদিনের প্রতিক্ষিত ‘স্টুডেন্টস ক্যাফেটোরিয়া’ উদ্বোধনকালে তিনি এসব কথা বলেন। 

এ সময় চবি সিনেট ও সিন্ডিকেট সদস্যবৃন্দ, ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. এ এফ এম আওরঙ্গজেব, সমাজ বিজ্ঞান অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. ফরিদ উদ্দিন আহামদ, আইন অনুষদের ডিন প্রফেসর এ বি এম আবু নোমান, জীব বিজ্ঞান অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. মো. মাহবুবুর রহমান, রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) জনাব কে এম নুর আহমদ, বিভিন্ন বিভাগের সভাপতি ও ইনস্টিটিউটের পরিচালকবৃন্দ, প্রক্টর প্রফেসর মোহাম্মদ আলী আজগর চৌধুরী, শিক্ষকবৃন্দ, অফিস প্রধানবৃন্দ এবং সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।   

উপাচার্য তাঁর ভাষণে উপস্থিত সকলকে স্বাগত এবং পবিত্র ঈদুল ফিতরের অগ্রিম শুভেচ্ছা জানান।  তিনি বলেন, চট্টগ্রাম বিশ^বিদ্যালয় এখন শুধু দেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠই নয়; জ্ঞান-গবেষণায় সমৃদ্ধ দেশের অত্যন্ত উঁচু মার্গের একটি উচ্চ শিক্ষা ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান।  চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়কে এই অনন্য উচ্চতায় পৌঁছে দিতে উপাচার্য হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকেই বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক, প্রশাসনিক ও ভৌত অবকাঠামো উন্নয়নে বিভিন্ন কর্ম পরিকল্পনা গ্রহণ এবং তা যথাযথ বাস্তবায়নে বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান প্রশাসন নিরলসভাবে কর্মব্যস্ত থেকেছেন।  বিশ্ববিদ্যালয় জুড়ে উন্নয়ন কর্মকান্ড এখন দৃশ্যমান। 

তিনি বলেন, শিক্ষক-গবেষক এবং শিক্ষার্থীদের পঠন-পাঠনসহ অবাধ জ্ঞান চর্চার ধারা অব্যাহত রাখতে শুধু নতুন নতুন অনুষদ, বিভাগ, ইনস্টিটিউট, ল্যাব, হলসহ বিভিন্ন স্থাপনা নির্মাণের পাশাপাশি এসবের সুষ্ঠু পরিচালনায় প্রয়োজন সঠিক সংখ্যক জনবল প্রয়োজন।  তিনি বলেন, শিক্ষা-গবেষণাকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিয়ে সম্মানিত শিক্ষক-গবেষক এবং শিক্ষার্থীদের জ্ঞান চর্চার ধারা প্রবাহমান রাখতে কারো মিথ্যা অপপ্রচারে কর্ণপাত না করে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান প্রশাসন নিরলসভবে কাজ করে যাচ্ছে।  উপাচার্য শিক্ষার্থীদের সময়মতো স্বল্পমূল্যে মানসম্মত খাবার সরবরাহ করতে এই ক্যাফেটোরিয়া প্রতিষ্ঠা। 

এ ক্যাফেটোরিয়া প্রতিষ্ঠার ফলে অতীতে শিক্ষার্থীরা সময়মত খাবারের বিষয়ে যে দুর্ভোগ পোহাতো তা অনেকাংশে লাঘব হবে মর্মে প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন।  তিনি ক্যাফেটোরিয়া খাবারের মান নিশ্চিতকল্পে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য দায়িত্বপ্রাপ্ত সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গকে নির্দেশ প্রদান করেন।