৪:৪৫ এএম, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, সোমবার | | ২৩ মুহররম ১৪৪১




রাংগামাটির বাঘাইছড়িতে এলজিইডির কার্পেটিং সড়কে ব্যাপক অনিয়ম দুর্নীতির অভিযোগ

২০ জুন ২০১৯, ১০:০৪ এএম | নকিব


এসএনএন২৪.কম : রাঙ্গামাটি জেলার বাঘাইছড়ি উপজেলায় ১.৬৬ থেকে ৫.৪ কিলোমিটার সড়ক পথের কার্পেটিং কাজের শুরুতেই ব্যাপক অনিয়ম ও দূর্নীতির আশ্রয় নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। 

স্থানীয়দের পক্ষ থেকে কাজে নিম্নমানের পাথর ও ভিটুমিন ব্যবহার করা হচ্ছে বলে অভিযোগ তুলেছেন স্থানীয় জনসাধারন। যানাযায়, স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর এলজিইডি কতৃক ২০১৯/২০২০ অর্থ সালের এই টেন্ডার কাজে প্রায়  তিন কোটি ৫৭ লক্ষ টাকা অর্থ বরাদ্ধ দেওয়া হয়। 

বাঘাইছড়ি উপজেলা সদরে বাঘাইছড়ি নামক এলাকার তালুকদার পাড়া হতে রাবার বাগান এলাকা পর্যন্ত স্থানীয় সরকার ও প্রকৌশল অধিদপ্তর কতৃক এই কাজ বাস্তবায়নে কার্যাদেশ প্রদান করা হয়েছে ইউটিমং নামে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে। 

এই লাইসেন্সর আড়ালে কাজের ঠিকাদার হিসেবে নিয়োজিত আছেন রাঙামাটির স্থানীয়  জসিম উদ্দিন ও গিয়াস উদ্দিন নামে দুই ভাই । 

সাইট তদারকি কর্মকর্তা এলজিইডির কোন প্রকৌশলী বা কার্যসহকারী দের কোন প্রকার তদারকি ছাড়াই মনগড়া কাজ হচ্ছে বলে অভিযোগ তুলেছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।  

নিম্নমানের পাথর, বালু ও  ভিটুমিন ব্যবহারের অভিযোগ রয়েছে এবং পড়ানো হচ্ছে অবৈধ কাঠ।  অভিযোগ রয়েছে সড়কে পরিমাপ অনুযায়ী কংক্রিট ও বালু ফিলিং না করে পাহাড়ের মাটি দিয়ে বালু ফিলিংয়ের কাজ শেষ করা হয়। এছাড়া ও বর্তমানে কার্পেটিং কাজে ব্যবহার করা হচ্ছে খুব নিম্নমানের ভিটুমিন।  সঠিক পরিমান ভিটুমিন মিক্সার না করেই কার্পেটিং এর কাজ করা হচ্ছে বলে অভিযোগ তুলেছেন স্থানীয়রা । 

এই সড়ক পথটি সারোয়াতলী ও আমতলী ইউনিয়নের যোগাযোগের একমাত্র সড়ক পথ।  উপজেলার সাথে যোগাযোগের একমাত্র এই সড়ক পথটি এলাকাবাসীর দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর সরকার সড়কের কার্যাদেশ দিলে এলাকাবাসী স্বস্তি প্রকাশ করেন তথা স্থানীয় সরকার প্রকৌশল ও বর্তমান সরকারের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন এই এলাকার জনগন। 

তবে কাজ শুরুর পর থেকে হতাশা প্রকাশ করছেন স্থানীয় জনগন। স্থানীয় এলজিইডি তদারকি কর্মকর্তাদের বারংবার অনিয়মের অভিযোগ তুলে ও কোন লাভ হচ্ছেনা বলে জানান সংবাদকর্মীদের ওই এলাকার খুব্দ স্থানীয় জনগন।  সড়কে যে পরিমান পাথর ভিটুমিন মিক্সার করার কথা তুলনা মূলক সঠিক পরিমাপে   ঠিকাদার কাজ করছেনা বলে অভিযোগ রয়েছে। 

সচেতন মহলের দাবী নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে কার্পেটিংয়ের ফলে যেকোন সময় কার্পেটিং খসে উঠে গিয়ে সড়ক পথটি দ্রুত চলাচলের  অনুপোযোগী হয়ে পড়ে  জনদূর্ভোগ চরম আকার ধারণ করতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করছেন। 

স্থানীয়দের অভিযোগ এর ভিত্তিতে সরেজমিনে কাজের স্থানে গেলে ঘটনার সত্যতা পাওয়া যায় এবং নিম্নমানের কিছু ভিটুমিন ড্রাম পার্শ্ববর্তী জঙ্গলে লুকায়িত অবস্থায় পাওয়া যায়।  নিম্নমানের কাজ ও ভিটামিন ব্যবহারের বিষয়ে ঠিকাদার গিয়াস উদ্দিনকে জিজ্ঞেস করলে তিনি উত্তেজিত হয়ে পড়েন।  তাকে জঙ্গলে লুকায়িত ভিটুমিন এর বিষয় জানতে চাইলে তিনি বলেন এগুলি ইঞ্জিনিয়ার দেখেছে এই ভিটুমিনগুলো কাজের ষ্টিমিটে ধরা রয়েছে। 

তাই আমরা এগুলো দিয়ে কাজ করছি।  কাজের স্টিমিট দেখতে চাইলে তিনি এই প্রতিবেদককে উল্টো প্রশ্ন ছোঁড়েন আপনি স্টিমিট দিয়ে ঠিকাদারি করবেন কিনা? এছাড়াও এলজিইডি কতৃক নির্মানাধীন বিভিন্ন সড়ক ও ভবন কাজে অনিয়মের অভিযোগ রয়েছে ঠিকাদার ও প্রকৌশলীর যোগসাজশে। ঠিকাদারগন সরকার দলিয় লোক হওয়াতে ক্ষমতার এই অপব্যবহার করছেন বলে ধারনা করছে সচেতন মহল। এদিকে কাজের সঠিক তদারকি না করে অর্থের বিনিময়ে স্থানিয় এলজিইডি প্রকৌশল ঠিকাদার ও ইন্জিনিয়ারের যোগসাজশে বিল প্রদান করার অভিযোগ তুলেছেন সচেতন মহল। 

স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর নুরুল হক তালুকদার বলেন, কাজের শুরু থেকেই এই অনিয়মের কথা ঠিকাদার ও ইন্জিনিয়ারকে  বললে ও তারা কোন কর্ণপাত করছে না।   তিনি এই কাজের সঠিক তদারকির জন্য যথাযথ কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেন। এব্যাপারে  বাঘাইছড়ি উপজেলা প্রকৌশলী মনিরুজ্জামানকে অবহিত করলে তিনি লোকবলের অভাব তাই ঠিকাদাররা দুর্নীতি করার সুযোগ পাচ্ছে বলে দাবি করেন।  তিনি প্রতিবেদকের সামনেই ঠিকাদারকে ডেকে নিম্নমানের ভিটুমিন সরিয়ে ফেলার নির্দেশ দেন এবং অবৈধ কাঠ না পুড়িয়ে বাতিলপূর্বক  জুট পড়ানোর নির্দেশ দেন। 


keya