১২:৪০ পিএম, ২১ জুলাই ২০১৯, রোববার | | ১৮ জ্বিলকদ ১৪৪০




সুরেশ কান্তি তঞ্চঙ্গ্যা হত্যাকারীদের গ্রেপতারের দাবীতে সংবাদ সম্মেলন

২৫ জুন ২০১৯, ০৮:০৮ পিএম | নকিব


পুষ্প মোহন চাকমা, বিলাইছড়ি প্রতিনিধি : বিলাইছড়ি উপজেলা আ.লীগের সভাপতি সুরেশ কান্তি তঞ্চঙ্গ্যা হত্যাকারীদের গ্রেফতার করে বিচারের আওতায় আনার দাবীতে নিজস্ব অফিস কনফারেন্স কক্ষে মঙ্গলবার (২৫ জুন) বিলাইছড়ি উপজেলা আওয়ামীলীগ কর্তৃক এক প্রতিবাদ সভা ও সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছে।  

সংবাদ সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন আওয়ামীলীগের সভাপতি (ভারঃ) অংসাখই মার্মা। 

এ সময় বক্তব্য রাখেন, বিলাইছড়ি আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক এস. এম সাহীদুল ইসলাম, সহ-সভাপতি সুকুমার চক্রবর্তী, সহ-সভাপতি জয়সেন তঞ্চঙ্গ্যা, নিহত সুরেশ কান্তি তঞ্চঙ্গ্যার ছেলে নিরুপম তঞ্চঙ্গ্যা।  

এ সময় আ,লীগের অন্যান্য নেতৃবৃন্দসহ সহযোগি ও অঙ্গসংগঠনের নেতা কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। 

প্রতিবাদ সভা ও সংবাদ সম্মেলনে লিখিত প্রেসব্রিফিং ছাড়া ব্যক্তিগত বক্তব্যের মধ্যদিয়ে প্রেসব্রিফ করা হয়।  

এ সময় উপজেলাআ.লীগের সাধারণ সম্পাদক এস. এম সাহীদুল ইসলাম বলেন, বিগত দিনে জেএসএস কর্তৃক আমাদের উপজেলা আওয়ামীলীগের বিভিন্ন নেতা কর্র্মী অপহরণসহ বিভিন্নভাবে নির্যাতিত করা হয়ে হয়েছে।  আমরা এর বিরুদ্ধে বিভিন্ন প্রতিবাদ সমাবেশসহ নানা কর্মসূচি দিলেও প্রশাসন তেমন কার্যকরী পদক্ষেপ নিতে পারেনি।  এছাড়াও গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো বিগত ১৯ মার্চ আমাদের প্রাণ প্রিয় নেতা আওয়ামীলীগের সভাপতি সুরেশ কান্তি  তঞ্চঙ্গ্যাকে নিজ পরিবারের সদস্যদের সামনে সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের দ্বারা নির্মমভাবে গুলি করে হত্যার পর প্রশাসন আমাদেরকে হত্যাকারীদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় এনে শাস্তি প্রদানের আশ^াস দিলেও তাদের নিরবতা দেখে আমাদের নেতাকর্মীরা হতাশ! 

আজ এ প্রতিবাদ সভা ও সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে আমরা প্রশাসনকে জানিয়ে দিতে চায়, অচিরেই যদি কোন কার্যকরী পদক্ষেদ না নেয়া হয় তাহলে আমরা আর চুপ করে থাকবনা।  আমরা খুনীদের বিচার না পাওয়া পর্যন্ত নানা কর্মসূচি ও আন্দোলন চালিয়ে যাব। 

নিহত সুরেশ কান্তি তঞ্চঙ্গ্যার ছেলে নিরুপম তঞ্চঙ্গ্যা বলেন, উপজেলা নির্বাচন শেষে গত ১৯ মার্চ বিলাইছড়ি সদরে ফেরার পথে পাহাড়ী সন্ত্রাসীরা আমার বাবাকে আমাদের সামনে নির্মমভাবে হত্যা করেছিল।  আমার বাবাকে হত্যার পর আমরা প্রশাসনের কাছে আশা করেছিলাম খুনীদের ধরে সঠিক বিচারের ব্যবস্থা নেয়া হবে কিন্তু এখনো পর্যন্ত কোন আসামীকে গ্রেফতার করা হয় নাই।  

আমি চাই বাংলাদেশ আ.লীগের আর কোন সদস্য যেন আমার বাবার মত হত্যার শিকার না হয়।  আমি এই প্রতিবাদ সভা ও সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে আমার বাবার খুনীদের গ্রেফতার করে বিচারের আওতায় আনার জোর দাবি জানাচ্ছি। 

উপজেলা আ.লীগের সহ-সভাপতি জয়সেন তঞ্চঙ্গ্যা বলেন, আমরা সবাই জানি দীর্ঘদিন ধরে এ এলাকায় কারা হত্যা, গুম ও অপহরণের  সাথে জড়িত।  আমরা এখানে দেখেছি স্থানীয় রাজনৈতিক দলগুলো দাপতের সাথে অবৈধ অস্ত্রের ঝনঝনানিসহ বিভিন্ন অপকর্ম করে যাচ্ছে।  তারা এখানে থেকে বিভিন্ন অপকর্ম করে জনগণের মনে ভীতি সঞ্চার করে যাচ্ছে।  তাদের বিরুদ্ধে যাওয়া এবং কথা বলা মানে অনিশ্চয়তার দিকে পা বাড়ানো এমনকি মৃত্যুর ঝুঁকি নেওয়া।  

তিনি আরও বলেন, সারাদেশে যখন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জঙ্গীবাদ ও সন্ত্রাসবাদ উৎখাত করেছেন, আমরাও চাই এই পার্বত্য চট্টগ্রাম থেকে জঙ্গীবাদ, সন্ত্রাসবাদ ও উগ্রবাদ সবকিছু উৎখাত করে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের আদর্শকে, মুজিবের আদর্শকে সবার ঘরে ঘরে পৌঁছে দিয়ে এবং ধারণ করে দেশকে এগিয়ে নিতে।  তিনি প্রশাসনের কাছে নিহত সুরেশ কান্তি তঞ্চঙ্গ্যার হত্যাকারীদের অবিলম্বে ধরে শাস্তির দাবি জানান। 


keya