১২:৫৩ এএম, ১৮ অক্টোবর ২০১৯, শুক্রবার | | ১৮ সফর ১৪৪১




জাবির বাজেটে শিক্ষার্থী সংশ্লিষ্ট বরাদ্দ নগণ্য

২৯ জুন ২০১৯, ১১:১৩ এএম | নকিব


শিহাব উদ্দিন, জাবি প্রতিনিধি : জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) ২০১৯-২০ সেশনের মূল বাজেট পেশ করা হয়েছে।  এতে মাত্র ১ দশমিক ১৫ শতাংশ বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে গবেষণা খাতে। 

ছাত্রবৃত্তি ও ফেলোশিপেও বরাদ্দ কমিয়ে আনা হয়েছে।  ফলে এ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক,শিক্ষার্থী ও সিনেট সদস্যরা। 

শুক্রবার (২৮ জুন) বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩৮ তম সিনেট অধিবেশনে এ বাজেট অনুমোদন দেওয়া হয়। 

বিশ্ববিদ্যালয় ‘বাজেট বরাদ্দ ২০১৯-২০’ শীর্ষক প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, ২০১৯-২০ সেশনের জন্য ২৫৯ কোটি ৯৭ লাখ টাকার বাজেট অনুমোদন দেয়া হয়।  এছাড়া ২০১৮-১৯ সেশনের ২৫৩ কোটি ৬৩ লাখ টাকার সংশোধিত বাজেট পাশ হয়। 

বর্তমান বাজেটে গবেষণা খাতে বরাদ্দ রাখা হয়েছে মোট বাজেটের ১ দশমিক ১৫ শতাংশ (৩ কোটি)।  আর বেতন ভাতা খাতে ব্যয় ধরা হয়েছে ৩২ দশমিক ৮৭ শতাংশ (৮৫ কোটি ৪৫ লাখ ৮৬ হাজার টাকা), ছাত্র বৃত্তি ও ফেলোশিপে গত বছরের চেয়ে ১০ লাখ টাকা কমিয়ে বরাদ্দ রাখা হয়েছে ২ কোটি ৮৮ লাখ টাকা যা গত বছর ছিল ২ কোটি ৯৮ লাখ।  ২০১৮-১৯ সেশনের সংশোধিত বাজেটে ঘাটতি রয়েছে মোট ৪৫ কোটি ৮৫ লাখ টাকা। 

এছাড়াও উপাচার্য তাঁর ভাষণে বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিকতর উন্নয়ন প্রকল্পের বিবরণ তুলে ধরে বলেন, ‘১৪৪৫ কোটি ৩৬ লক্ষ টাকা ব্যয়সংবলিত “জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিকতর উন্নয়ন” শীর্ষক একটি প্রকল্প-প্রস্তাব গত ২৩ অক্টোবর ২০১৮ তারিখে একনেক সভায় অনুমোদিত হয়েছে।  বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসে এটি সবচেয়ে বড় উন্নয়ন বাজেট।  এই প্রকল্পের আওতায় ১০-তলা বিশিষ্ট প্রশাসনিক ভবন নির্মাণ, ১০০০ জন ছাত্র ও ১০০০ জন ছাত্রীর জন্য ৩টি করে ১০-তলা বিশিষ্ট মোট ৬টি হল নির্মাণ, বিভিন্ন হলের হাউজ টিউটরদের জন্য ১০-তলা বিশিষ্ট ১টি বাসভবন নির্মাণ, শহীদ রফিক-জব্বার হলের উত্তর ব্লকের ৪র্থ ও ৫ম তলা নির্মাণ, জীববিজ্ঞান অনুষদ, সমাজবিজ্ঞান অনুষদ, কলা ও মানবিকী অনুষদ ও গাণিতিক ও পদার্থ বিষয়ক অনুষদ ভবনের আনুভূমিক সম্প্রসারণের জন্য ৬-তলা বিশিষ্ট ৪টি নতুন ভবন নির্মাণ, ৬-তলা বিশিষ্ট ১টি লেকচার থিয়েটার এবং পরীক্ষা হল নির্মাণ, ৬-তলা বিশিষ্ট ১টি লাইব্রেরি ভবন নির্মাণ এবং ৩-তলা বিশিষ্ট ১টি স্পোর্টস কমপ্লেক্স নির্মাণের প্রস্তাবসহ আরো অনেক স্থাপনা নির্মাণের প্রস্তাব করা হয়েছে। 

এবারের বাজেটে ব্যাপক কারচুপির আশ্রয় নিতে দেখা গেছে বলে মন্তব্য করছেন বিশ্লেষকরা।  বিশ্লেষণে দেখা যায় জাবি স্কুল এন্ড কলেজের পেছনে ব্যয় হয় সাড়ে ১২ কোটি সেখানে বরাদ্দ রাখা হয়েছে মাত্র ৪০ লাখ টাকা।  এছাড়া উপাচার্যের গাড়ির জ্বালানী বাবদ ব্যয় এক লাখ টাকা বৃদ্ধি করে ৬ লাখ টাকা করলেও শিক্ষার্থীদের দাবি অনুযায়ী তেমন বরাদ্দ বাড়ানো হয়নি মেডিকেল সেন্টারের জন্য।  মেডিকেল সেন্টার (ডাক্তার ও কর্মচারীদের বেতনসহ ওষুধ অন্যান্য আনুষঙ্গিক) বাবদ বরাদ্দ রাখা হয়েছে ৩ কোটি ২৬ লাখ টাকা যা গত বছর ছিল ৩ কোটি ১২ লাখ।  এছাড়াও বিভিন্ন অসামঞ্জস্যতার কথা তুলে ধরেছেন বাজেট বিশ্লেষকগণ।