৮:৫৫ পিএম, ১৯ জুলাই ২০১৯, শুক্রবার | | ১৬ জ্বিলকদ ১৪৪০




মাদারীপুরে খাল পরিস্কার ও খালের পাড়ে থাকা ৫০টি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ

০৬ জুলাই ২০১৯, ০৭:৩১ পিএম | নকিব


মাতুব্বর শফিক স্বপন,মাদারীপুর প্রতিনিধি : মাদারীপুর শহরের গুরত্বপূর্ন ইটেরপুল-কালকিনি খাল পরিস্কার ও খালের পাড়ের  অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান শনিবার সকালে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে শুরু হয়েছে। 

এ সময় খালের উপর গড়ে উঠা প্রায় ৫০টি দোকানঘর ও অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়।  

প্রশাসন ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মাদারীপুর শহরের থেকে কালকিনি উপজেলায় যাতায়াতের জন্য এক সময় খালটির খুবই গুরুত্ব ছিল।  সব সমই খালটিতে পানি থাকতো। 

বর্ষার সময় আসলেই মানুষ নৌকা নিয়ে কালকিনি থেকে মাদারীপুর শহরে আসতো।  গুরত্বপূর্ন এ খালটির কিছু অংশ চার/পাঁচ বছর পূর্বে খনন করা হলেও কচুরীপানা ও জলজ উদ্ভিদ জন্মে ও বিভিন্ন লোকজন ময়লা আবর্জনা ফেলে খালের পানি প্রবাহ প্রায় বন্ধ করে ফেলেছে। 

এছাড়াও প্রভাবশালী কিছু মানুষ খালটির উপর অবৈধভাবে স্থাপনা ও দোকান ঘর নির্মাণ করেছে।  খালটি শহরের পয়-পানি নিস্কাষনের জন্য অত্যন্ত জরুরী তাই পরিস্কার করা জরুরী হয়ে পরায় জেলা প্রশাসন খালটি পরিস্কার করার উদ্যোগ নিয়েছেন। 

উচ্ছেদ অভিযানের প্রথম দিনে প্রায় ৫০ টি দোকানঘর ও অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়।  শনিবার সকাল ১০টায় জেলা প্রশাসক মো: ওয়াহিদুল ইসলাম শহরের ইটের পুল এলাকায় কর্মসূচীর উদ্বোধন করেন।  এসময় উপস্থিত ছিলেন নব নির্বাচিত সদর উপজেলা চেয়ারম্যান এ্যড. ওবাইদুর রহমান কালু খান, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: সাইফ উদ্দিন গিয়াস, এনডিসি মো. আনোয়ার হোসেন প্রমুখ।   

জেলা প্রশাসক মো: ওয়াহিদুল ইসলাম জানান, সংরক্ষণ ও পরিচর্যার অভাবে খালটি আবর্জনায় ভরে গেছে।  এছাড়াও প্রভাবশালী কিছু মানুষ খালটির উপর অবৈধভাবে স্থাপনা ও দোকান ঘর নির্মাণ করেছে।  শুধু খালটি পরিস্কার নয় খালের পাড়ে যে সমস্ত অবৈধ স্থাপনা রয়েছে তা ও উচ্ছেদ কার্যক্রম একই সাথে শুরু করা হয়েছে।  শহরের ইটেরপুল থেকে পাথইরারপাড় পর্যন্ত সাত কিঃমি খাল পুনরুদ্ধার করা হবে।  খালটি দিয়ে যাতে সুন্দরভাবে পানি চলাচল করতে পারে আমরা সে ব্যবস্থা করবো। 


keya