১:৩৬ পিএম, ২১ অক্টোবর ২০১৯, সোমবার | | ২১ সফর ১৪৪১




ইবি ছাত্রলীগ কমিটিকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা পদবঞ্চিতদের

১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৫:০৬ পিএম | নকিব


মুনজুরুল ইসলাম নাহিদ, ইবি প্রতিনিধি :টাকায় কেনা ও বিশ^বিদ্যালয় প্রশাসনের পকেট কমিটি আখ্যায়িত করে ইসলামী বিশ^বিদ্যালয় ছাত্রলীগের দুই সদস্যের কমিটিকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেছে কমিটিতে পদ না  পাওয়া নেতাকর্মীরা। 

রোববার (১৫ সেপ্টেম্বর) সকাল ১০টায় এক বিক্ষোভ মিছিল থেকে শাখার সভাপতি রবিউল ইসলাম পলাশ ও সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিবকে ক্যাম্পাসে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেন তারা। 

জানা যায়, রোববার বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ ঢাকা-খুলনা মহাসড়কে যাওয়ার পথে ইবি মেইন গেইটে তাকে স্বাগত জানায় কমিটিতে পদ না  পাওয়া বিদ্রোহী গ্রুপের নেতাকর্মীরা। 

পরে গেইট থেকে তারা মিছিল নিয়ে ক্যাম্পাসের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিন করে।  এসময় তারা ‘টাকা দিয়ে কেনা কমিটি মানিনা, মানব না’, ‘প্রশাসনের পকেট কমিটি মানিনা’ ইত্যাদি শ্লোগান দেয়।  নেতা হতে ৪০ লাখ টাকা খরচ করতে হয়েছে এমন তথ্য সংবলিত সম্পাদক রাকিবের একটি অডিও ভাইরাল হওয়ার প্রেক্ষিতে ক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা এ বিক্ষোভ মিছিল করে। 

মিছিলটি দলীয় টেন্টে এসে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে মিলিত হয়।  সমাবেশে নেতাকর্মীরা ইবি শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাকিবের বিরুদ্ধে অর্থ লেনদেনসহ বিভিন্ন অভিযোগ তুলে ধরে।  পাশাপাশি ৪০ লাখ টাকার বিনিময়ে রাকিবের সম্পাদক হওয়ার বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন।  এসময় বিশ^বিদ্যালয় প্রশাসনের সহযোগিতায় এ কমিটি দেওয়া  হয়েছে দাবি করেন তারা। 

নেতাকর্মীরা বলেন, রাকিব ইবি শাখা ছাত্রলীগ ইউনিটকে কলুষিত করেছে।  তার বিরুদ্ধে একাধিক নিয়োগ বাণিজ্য, টেন্ডারবাজির বিভিন্ন অডিও রেকর্ড ইতোমধ্্েযই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে।  যার ফলে ইবি শাখা ছাত্রলীগের ভাবমূর্তি নষ্ট হয়েছে।   

মিছিল পরবর্তী সমাবেশ থেকে রাকিব-পলাশ কমিটিকে অবাঞ্চিত ঘোষণা করা হয়।  সেইসাথে কন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সদ্য দায়িত্বপ্রাপ্ত সভাপতি ও সম্পাদকের কাছে ইবি ছাত্রলীগের কমিটিকে দুর্নীতিগ্রস্থ ও ম্যাচ কমিটি দাবি করে কমিটিকে অনতিলম্বে বাতিল করে যোগ্যদের নেতৃত্ব দেয়ার আহŸান জানান।  মিছিলে শাখা  ছাত্রলীগের প্রায় দুই শতাধিক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন। 

এবিষয়ে শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক শিশির ইসলাম বাবু বলেন, ‘বাংলাদেশ ছাত্রলীগ বঙ্গবন্ধুর নিজ হাতে গড়া তারই আদর্শের সংগঠন।  এর একটি গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস ও ঐতিহ্য আছে।  টাকার বিনিময়ে কমিটি এই ঐতিহ্যকে ভ‚লন্ঠিত করেছে।  বর্তমান কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে আমাদের দাবি, যেন অবৈধ এই কমিটিকে বিলুপ্ত করে নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়। ’ 

শাখা ছাত্রলীগ সভাপতি রবিউল ইসলাম পলাশ বলেন, ‘কেন্দ্র থেকে আমাদের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে, কোন সিদ্ধান্ত নিলে কেন্দ্র নিবে।  অন্য কেউ কমিটিকে অবাঞ্চিত ঘোষনার কে? আমার বিরুদ্ধে অনৈতিক কোন অভিযোগ প্রমাণিত হলে স্বেচ্ছায় সভাপতি পদ থেকে পদত্যাগ করব। ’

উল্লেখ্য, দীর্ঘদিন  স্থগিত থাকার  পর  গত ১৪ জুলাই  মধ্যরাতে শোভন-রাব্বানীর কেন্দ্রীয়  কমিটি পলাশ  ও রাকিবকে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক করে ইবির কমিটি ঘোষণা করে।  কমিটি ঘোষণা হলেও তা মেনে নেয়নি পদবঞ্চিত নেতাকর্মীরা।  ক্যাম্পাসে রাজনীতি না করেও টাকার বিনিময়ে কমিটিতে পদ পেয়েছে বলে  দাবি করে আসছিল বিদ্রোহী গ্রুপ।  রাকিবের  অডিও ভাইরাল হলে তা আরোও স্পষ্ট হয়।  এরপরেই আন্দোলন শুরু করেছে নেতাকর্মীরা।