২:২৫ পিএম, ২১ অক্টোবর ২০১৯, সোমবার | | ২১ সফর ১৪৪১




ইবিঃ পদবঞ্চিতদের ধাওয়ায় ক্যাম্পাস ছাড়ল ছাত্রলীগ সম্পাদক

২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১১:৫৭ এএম | নকিব


মুনজুরুল ইসলাম নাহিদ , ইবি প্রতিনিধি : ইসলামী বিশ^বিদ্যালয় (ইবি) শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিবকে ধাওয়া দিয়ে ক্যাম্পাস ছাড়া করেছেন পদবঞ্চিত নেতা-কর্মীরা। 

শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে ক্যম্পাসে এ ঘটনা ঘটে।  তবে এ ঘটনায় কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।  

প্রত্যক্ষদর্শী ও দলীয় সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে বহিরাগতদেরকে সাথে নিয়ে ক্যাম্পাসে আসেন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিব।  পরে রাকিব ও তার কর্মীরা জিয়া মোড়ে জড়ো হয়।  এসময় তার সাথে দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র ছিল বলে জানায় প্রত্যক্ষদর্শীরা।  রাকিবের ক্যাম্পাসে আসার খবর আবাসিক হলগুলোতে ছড়িয়ে পড়লে পদবঞ্চিত নেতা-কর্মীরা দেশীয় অস্ত্র নিয়ে হলের সামনে সংঘবদ্ধভাবে অবস্থান নেয়। 

সাড়ে ৫টার দিকে লালন শাহ হল থেকে আবুল খায়েরের নেতৃত্বে সভাপতি-সম্পাদক গ্রæপের নেতা-কর্মীরা জিয়া মোড়ে অবস্থানরত নেতা-কর্মীদের সাথে একত্রিত হয়।  এসময় একযোগে আবাসিক হলের সামনে অবস্থানরত পদবঞ্চিতরা সম্পাদক গ্রæপকে ধাওয়া দেয়।  এসময় তাদের হাতে লাঠি-সোঠা, হকস্টিক, লোহার রডসহ দেশীয় অস্ত্র ছিলো বলে জানান প্রত্যক্ষদর্শীরা।  ধাওয়া খেয়ে সাধারণ সম্পাদকের কর্মীরা দৌড়ে পালিয়ে যায়।  

এসময় বিশ^বিদ্যালয়ের প্রধান ফটকে নেতা-কর্মীদের নিয়ে অবস্থান করছিলেন সম্পাদক রাকিব।  পরে পদবঞ্চিতরা বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে রাকিবকে খুঁজতে প্রধান ফটকের দিকে অগ্রসর হন।  এ খবরে রাকিব ও তার সাথে থাকা নেতা-কর্মীরা পালিয়ে চলে যায়।  

তাকে না পেয়ে ইবি শাখা সাবেক সাংগঠিক সম্পাদক শিশির ইসলাম বাবু, তৌকির মাহফুজ মাসুদ, ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক মিজানুর রহমান লালন, উপ বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক জুবায়ের রহমান, আপ্যায়ন বিষয়ক সম্পাদক রিজভী আহমেদ পাপন, উপ সম্পাদক ফয়সাল সিদ্দিকি আরাফাতের নেতৃত্বে বিদ্রোহীরা সাদ্দাম হোসেন হল, শেখ রাসেল হল এবং লালন শাহ হলে প্রবেশ করে সভাপতি-সম্পাদককের বিরুদ্ধে ¯েøাগান দিতে থাকে।  এসময় হলে অবস্থানরত শিক্ষার্থীদের মধ্য আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।  

এর আগেও দলীয় কর্মীকে মারধরের ঘটনাকে কেন্দ্র করে ২৫ আগস্ট রাতে ছাত্রলীগের দু’গ্রæপে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ঘটে।  এসময় রাকিব ক্যাম্পাস থেকে চলে যায়।  এর পর থেকে তাকে আবাসিক হল এলাকায় দেখা যায়নি।  সাম্প্রতি ৪০ লাখ টাকার বিনিময়ে সম্পাদক হয়ে আসার অডিও ফাঁস হলে ক্যাম্পাসে রাকিব-পলাশ কমিটিকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে পদবঞ্চিত নেতাকর্মীরা।  এই ঘোষণার পর শুক্রবারই প্রথম বারের মতো ক্যম্পাসে প্রবেশ করে রাকিব।  

এ বিষয়ে পদবঞ্চিত গ্রুপের মিজানুর রহমান লালন বলেন, ‘বহিরাহত ক্যাডার নিয়ে ক্যাম্পাসে আসে রাকিব।  তার উদ্দেশ্য ভাল ছিলো না।  টাকার বিনিময়ে নেতা হয়ে আসায় তাকে ক্যাম্পাসে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেছে কর্মীরা।  আর অবাঞ্ছিত কাউকে ক্যাম্পাসে ঢুকতে দেওয়া হবে না।