৮:০৯ এএম, ১৮ নভেম্বর ২০১৯, সোমবার | | ২০ রবিউল আউয়াল ১৪৪১




১১ জনের নামে মামলা দায়ের

নান্দাইলে অস্তিত্বহীন মাদরাসায় শিক্ষক নিয়োগের পায়তারা

২০ অক্টোবর ২০১৯, ০১:৫৮ পিএম | নকিব


মো. শাহজাহান ফকির, নান্দাইল (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি : ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার গাংগাইল ইউনিয়নের অস্তিত্বহীন সুন্দাইল এবতেদায়ী মাদরাসায় ৫জন শিক্ষক নিয়োগের জন্য একটি পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে শিক্ষক নিয়োগের চেষ্ঠা করা হচ্ছে। 

এলাকাবাসী ও মামলা সূত্রে জানা গেছে, ১৯৯১ইং সনে সুন্দাইল গ্রামে এবতেদায়ী মাদরাসা স্থাপন করা হয়।  তৎক্ষকালীন সময়ে মো. ফখরুল ইসলাম, হাবিবুর রহমান আকন্দ, আব্দুল কদ্দুছ নামে ৩জন শিক্ষকের এমপিও ভূক্ত হয়।  পরবর্তী সময়ে সারাদেশের ন্যায় এই এবতেদায়ী মাদরাসা গুলো বন্ধ হয়ে যায়। 

শিক্ষক ফখরুল ইসলাম ও আব্দুল কদ্দুস অন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যোগদান করেন এবং নিয়মিত বেতনভাতা পাচ্ছেন। 

দীর্ঘ বছর পর বর্তমান আওয়ামীলীগ সরকার এবতেদায়ী মাদরাসাগুলো পুনরায় চালু করার উদ্যোগ নিলে সুন্দাইল এবতেদায়ী মাদরাসার সাবেক শিক্ষক হাবিবুর রহমান আকন্দ একটি ভূয়া কমিটি সৃজন করেন ৫জন শিক্ষক নেওয়ায় জন্য একটি পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রদান করেছে। 

বিষয়টি এলাকাবাসী জানতে পেরে ভূয়া নিয়োগ কার্যক্রম বন্ধ করার জন্য নান্দাইল উপজেলা নির্বাহী অফিসার সহ শিক্ষা প্রশাসনের বিভিন্ন স্থানে অভিযোগ দায়ের করেছেন।  এছাড়া সুন্দাইল গ্রামের মনসুর আলীর পুত্র মো. সোনা মিয়া, মো. চান মিয়ার পুত্র শামছুল হক সহ ১৭জন বাদী হয়ে নান্দাইল উপজেলা শিক্ষা অফিসার, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, জেলা শিক্ষা অফিসার সহ কথিত ভূয়া শিক্ষক আ: সালাম, আফরোজা খানম, সুরাইয়া বেগম, মো. হাবিবুর রহমানকে বিবাদী করে নান্দাইল সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে ১১৩/২০১৯ অন্যপ্রকার মামলা দায়ের করেছে। 

স্থানীয় অনুসন্ধানে জানাগেছে, ১৯৯৫ইং সনের পর থেকে সুন্দাইল এবতেদায়ী মাদরাসা নামে এই এলাকায় কোন প্রতিষ্ঠান নাই তবে এই স্থানে একটি হাফিজিয়া মাদরাসা চালু রয়েছে। 

তাদের নামে কোন বেতন ভাতা উত্তোলিত হয় নাই।  বর্তমানে সকল ভূয়া কাগজ পত্র সৃজন করে প্রতিষ্ঠানটি সরকারী অনুমোদন সহ শিক্ষক নিয়োগ কাযক্রম সম্পন্ন করার চেষ্ঠা চালিয়ে যাচ্ছে। 

নান্দাইল উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো. রুকন উদ্দিন জানান, তার দপ্তরে সুন্দাইল এবতেদায়ী মাদরাসার নামে কোন প্রতিষ্ঠান তালিকা ভূক্ত নেই এবং শিক্ষক নিয়োগের বিষয়টি তিনি জানেন না।