৬:৫১ এএম, ১৫ নভেম্বর ২০১৯, শুক্রবার | | ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪১




নেত্রকোণার মদনে সাইনবোর্ড সর্বস্ব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান

৩০ অক্টোবর ২০১৯, ০২:৪৭ পিএম | নকিব


জাহাঙ্গীর আলম, নেত্রকোণা প্রতিনিধিঃ সম্প্রতি এমপিওভুক্তি হওয়া প্রতিষ্ঠানের তালিকায় নেত্রকোণার মদনে অস্থিত্বহীন একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নাম আসার অভিযোগ উঠেছে। 

তবে যে ঠিকানায় প্রতিষ্ঠানটি এমপিওভুক্তি হয়েছে সেখানে গিয়ে প্রতিষ্ঠানটির কিছুই পাওয়া না গেলেও প্রায় ১০ কিলোমিটার দুরত্বে উপজেলা সদরে ভাড়া বাসায় একটি সাইনবোর্ড পাওয়া গেছে। 

সংশ্লিষ্ট শিক্ষা কর্মকর্তারাও বলছেন, তদন্তে গিয়ে ঠিকানায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির কোন হুদিস পাননি। 

নেত্রকোণা জেলায় কারিগরি, স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা মিলিয়ে ৬০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সম্প্রতি সরকারের এমপিওভুক্তির তালিকায় রয়েছে।  এর মধ্যে মদন উপজেলার হাসনপুর গ্রামের ঠিকানায় জনতা কারিগরী ও বানিজ্য কলেজ নামের একটি প্রতিষ্ঠানসহ ৮টি কারিগরি কলেজ অন্তর্ভূক্তি হয়েছে। 

অথচ হাসনপুরে এই কলেজটির কোন ঘর, সাইনবোর্ড, শিক্ষক বা শিক্ষার্থীর দেখা মিলেনি।  এলাকার মানুষও বলছেন, সেখানে জনতা কারিগরী ও বানিজ্য কলেজ নামে কোন প্রতিষ্ঠান নেই। 

মদন উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা বলছেন, তিনি তদন্ত করে দেখেছেন ঠিকানা অনুযায়ী কলেজটির অস্থিত্ব নেই।  পরে তিনি উপজেলা সদরে মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সের পিছনে একটি ভাড়া বাড়িতে কলেজটির একটি সাইনবোর্ড পেয়েছেন। 

জনতা কারিগরী ও বানিজ্য কলেজের পরিচালনা কমিটির সভাপতি বর্তমানে ১৭২ জন শিক্ষার্থী ও ১১জন শিক্ষক ও ষ্টাফ থাকার দাবি করে বলেন, সরকারি সহযোগিতা না পাওয়ায় অবকাঠামো করা যায়নি।  বাড়ি ভাড়া করে কার্যক্রম চালানো হচ্ছে ।  তবে এখন এমপিও হওয়ায় কাঠামো করা হবে বলে জানান তিনি। 

এদিকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: ওয়ালীউল হাসান বলছেন, এ বিষয়ে তিনি কিছুই জানেন না।  তবে খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও জানান তিনি। 

প্রসঙ্গত, ২০০৬ সালে প্রতি ট্রেডে ৫০ জন করে দুইটি ট্রেডের স্বীকৃতি নিয়ে কলেজটি শুরু হয় কাগজেপত্রে।  গত ২৯ অক্টোবর মঙ্গলবার দুপুরে গিয়ে ভিন্ন ঠিকানায় থাকা সাইনবোর্ডটির দেখা মিললেও বাড়িটির দরজা ছিল বন্ধ।  শিক্ষক বা কোন শিক্ষার্থীকেও পাওয়া যায়নি সেখানে।