১:১৪ পিএম, ১৮ নভেম্বর ২০১৯, সোমবার | | ২০ রবিউল আউয়াল ১৪৪১




নির্বাহী কর্মকর্তার সচতেনতায় মাইকিং বাগেরহাটে

০৯ নভেম্বর ২০১৯, ০৪:৫৪ পিএম | নকিব


এম.পলাশ শরীফ,বাগেরহাট প্রতিনিধি : ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুলে’র আঘাতে যাতে ক্ষয়ক্ষতি কম হয় সে লক্ষে দুর্যোগ প্রবন উপক‚লীয় উপজেলা বাগেরহাটের মোড়েলগঞ্জে সকল প্রকার প্রস্তুতি সম্পন্ন করে সভা করেছেন উপজেলা প্রশাসন, পৌরসভা, উপজেলা পরিষদ, থানা প্রশাসন পৃথক পৃথক মাইকিং করে জনসাধারণকে নিরাপদ আশ্রয় কেন্দ্রে যাবার জন্য সচেতন করছেন। 

প্রতিটি ইউনিয়নের আশ্রয় কেন্দ্রগুলোতে রাতে শুকনা খাবারের প্রস্তুতি রাখা হয়েছে। 

শনিবার সকাল থেকেই ৮৩টি আশ্রয় কেন্দ্র খুলে দেওয়া হয়েছে।  সেখানে আশ্রয় নিয়েছে গর্ববর্তী মা, প্রতিবন্ধী, শিশু, বিদ্ধ সহ প্রায় ১২ হাজার সাধারণ মানুষ ও প্রায় ২ হাজার গবাদী পশু তোলা হয়েছে এ কেন্দ্রগুলোতে। 

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. কামরুজ্জামান শনিবার সকাল থেকে সদর ইউনিয়নের গাবতলা, কাঠালতলা, খাউলিয়ার সন্ন্যাসী, নিশানবাড়িয়ার পলিটিক্স আশ্রয় কেন্দ্র ও বারইখালীর তেতুলবাড়িয়া সাইক্লোন শেল্টার গুলোতে পরিদর্শন করে আশ্রয় কেন্দ্রে আসা সাধারণ মানুষের খোঁজ খবর নেন।  একই সাথে তিনি সচেতনতার লক্ষে মাইকিং করে নিরাপদ আশ্রয় কেন্দ্রগুলোতে উপস্থিত হওয়ার জন্য আহŸান জানান। 

এ সময় তার সাথে ছিলেন সহকারি কমিশনার(ভূমি) রঞ্জন চন্দ্র দে, অতিরিক্ত সহকারি কমিশনার মো. আজিজুল কবিরসহ বিভিন্ন প্রশাসনিক কর্মকর্তা স্থানীয় জনপ্রতিনিধি সহ বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষ। 

এদিকে উপজেলা প্রশাসনের দুর্যোগ মোকাবেলায় কন্টোল রুম থেকে প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. নাসির উদ্দিন জানান, দুর্যোগ “বুল বুল” মোকাবেলায় ইতোমধ্যে ১৬টি ইউনিয়নসহ পৌরসভায় ৮৩টি সাইক্লোন শেল্টার, ১৮টি মেডিকেল টিম, আনসার বিডিপি, গ্রাম পুলিশ, স্বেচ্ছাসেবক, স্কাউট, জনপ্রতিনিধিসহ ২৫ সদস্য বিশিষ্ট প্রায় আড়াই হাজার কর্মী মাঠ পর্যায়ে প্রস্তুতি রাখা হয়েছে। 

ইতোমধ্যে এসব স্বেচ্ছাসেবক টিম আশ্রয় কেন্দ্রগুলোতে জনসাধারনের উপস্থিতি নিশ্চিত করছেন।  পাশাপাশি ফায়ার সার্ভিসের ১৭ সদস্য টিম ও পুলিশ বাহিনী সার্বক্ষনিক অবস্থান করছেন।  দূর পাল্লার সকল প্রকার নৌ চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে। 

এ সর্ম্পকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. কামরুজ্জামান বলেন, ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ মোকাবেলায় ইতোমধ্যে সকল প্রকার প্রস্তুতি  রাখা হয়েছে।  আশ্রয় কেন্দ্রগুলোতে সকালের চেয়ে বিকেল ৩ টার পর থেকেই উপস্থিতি বেড়েছে।  তাদেরকে দেওয়া হয়েছে শুকনা খাবার।  ইউনিয়ন পর্যায়ের সার্বক্ষনিক খোঁজ খবর রাখা হচ্ছে কন্টোল রুম থেকে।