২:২২ এএম, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০, রোববার | | ২৮ জমাদিউস সানি ১৪৪১




মুক্তিযোদ্ধা নুরুল আজম চৌধুরী হত্যাকান্ডের মূল হোতা র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার

১০ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০২:০৫ পিএম | নকিব


নকিব ছিদ্দিকী, চট্টগ্রাম : চট্টগ্রাম জেলার রাউজান থানাধীন উরকিরচর এলাকার ক্লুলেস চাঞ্চল্যকর সাবেক উপ-পুলিশ পরিদর্শক বীর মুক্তিযোদ্ধা এ, কে, এম নুরুল আজম চৌধুরী (৭২) হত্যাকান্ডের মূল হোতা শেখ সোহরাব হোসেন সাদিচ (২৬)‘কে গুরুত্বপূর্ণ আলামতসহ গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৭। 

 উরকিরচর ইউনিয়নের হারপাড়া গ্রামের সাবেক উপ-পুলিশ পরিদর্শক বীর মুক্তিযোদ্ধা এ, কে, এম নুরুল আজম চৌধুরী (৭২) ‘কে গত ০৮ ফেব্রুয়ারি-২০২০ খ্রিঃ তারিখে তার বাড়ির পাশে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তি/ব্যক্তিরা ধারালো অস্ত্র দিয়ে অত্যান্ত নৃশংসভাবে হত্যা করে মাথা বিছিন্ন করে ফেলে যায়। 

এই চাঞ্চল্যকর হত্যা মামলার আসামীদের গ্রেফতারের লক্ষে র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম ছায়াতদন্ত শুরু করে এবং ব্যাপক গোয়েন্দা নজরদারি অব্যাহত রাখে।  ব্যাপক গোয়েন্দা নজরদারির এক পর্যায়ে, র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম জানতে পারে যে, উরকিরচর ইউনিয়নের হারপাড়া গ্রামের সাবেক উপ-পুলিশ পরিদর্শক বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল আজম চৌধুরী (৭২)‘কে নৃশংসভাবে হত্যাকারী অজ্ঞাতনামা আসামী পথেরহাট বাজারের আশপাশে অবস্থান করছে। 

উক্ত সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-৭ এর একটি আভিযানিক দল রাউজান থানাধীন পথেরহাট বাজার এলাকায় অভিযান চালিয়ে আসামী শেখ সোহরাব হোসেন সাদিচ (২৬) কে গ্রেফতার করে। 

আসামীকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে সে জানায় যে, গত ০৮/০২/২০২০ খ্রিঃ তারিখ দিনের বেলায় উরকিরচর ইউনিয়নের হারপাড়া গ্রামের সাবেক উপ-পুলিশ পরিদর্শক বীর মুক্তিযোদ্ধা এ, কে, এম নুরুল আজম চৌধুরী (৭২)‘কে ছুরি দ্বারা শরীর থেকে মাথা বিছিন্ন করে হত্যা করে পলাতক রয়েছে। 

আসামীর উক্তরূপ স্বীকারোক্তি ও তথ্যের ভিত্তিতে ধৃত আসামীসহ র‌্যাব-৭ অভিযান পরিচালনা করে ০৯/০২/২০২০ ইং তারিখ রাতে উরকিরচর বইজাখালী গেইট কাপ্তাই চট্টগ্রাম মহাসড়কে দক্ষিন পাশের্^ জনৈক কর্মকার এর দোকান ঘরের ভিতর মাটির তৈরী বন্ধু চুলার পাশে রাখা হত্যা কান্ডে ব্যবহৃত একটি কাঠের বাটযুক্ত লোহার তৈরী ধারালো ছুরি (যা কাঠের বাটসহ লম্বায় ৩৩.২ ইঞ্চি) উদ্ধার করে। 

সাক্ষীদের উপস্থিতিতে ধৃত আসামী জানায় যে, উদ্ধারকৃত ছুরিটি সে জনৈক কর্মকার এর দোকান থেকে হত্যার দিন সকাল অনুমানিক ১০.০০ ঘটিকার সময় ১,০০০/- (এক হাজার) টাকা মূল্যে ক্রয় করে এবং উক্ত ছুরি দ্বারা সে বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল আজম চৌধুরী (৭২)‘কে শরীর থেকে মাথা বিছিন্ন করে হত্যা করে ছুরিটি পানি দ্বারা ধুয়ে ফেলে পরবর্তীতে ০৮/০২/২০২০ ইং তারিখ কামারের দোকানে ফিরিয়ে দেয়। 

ব্যাপকভাবে জিজ্ঞাসাবাদে সে জানায় যে, ঘটনার দিন হত্যা কান্ডের সময় তার পরিহিত রক্তমাখা জামা কাপড় তার বসত ঘরে রয়েছে।  উক্ত তথ্যের ভিত্তিতে আসামী ও উদ্ধারকৃত আলামতসহ রাউজান থানাধীন উরকিরচর ইউনিয়নের হারপাড়া গ্রামের জনৈক শেখ মোহাম্মাদ এর বাড়ির ভিতর ০৯/০২/২০২০ ইং তারিখ রাত ২২.১৫ ঘটিকার সময় আসামী শেখ সোহরাব হোসেন সাদিচ এর সেমি পাঁকা ঘরে দরজা দিয়ে প্রবেশের প্রথম কক্ষে কাঠের তৈরী সোফা চেয়ারের উপর আসামীর দেখানো মতে হত্যার সময় ধৃত আসামীর পরিহিত (১) হালকা কালো রংয়ের রক্তমাখা ভেজা জিন্স প্যান্ট, (২) একটি লাল, সাদা, কালো ও ছাই রংসহ বিভিন্ন রংয়ের ফুল হাতাওয়ালা রক্তমাখা ভেজা শাট, (৩) একটি জলপাই রংয়ের রক্তমাখা ভেজা সোয়েটার, (৪) একটি আকাশী রংয়ের হাফহাতা রক্তমাখা গেঞ্জি উদ্ধার করা হয়।  ধৃত আসামী রক্তের দাগ মুছে ফেলার জন্য সকল জামা কাপর পানি দ্বারা ধুয়ে শুকাতে দেয় বলে সাক্ষীদের সম্মুখে স্বীকার করে।  আসামীকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে সে আরো জানায় যে, নিহত ব্যক্তি তাকে নিয়ে ঠাট্টা-বিদ্রুপ করায় সে গত ০৫ মাস ধরে তাকে হত্যার পরিকল্পনা করে আসছিল। 

এই হত্যাকান্ডে আরো কেউ জড়িত আছে কিনা তা জানার জন্য নিয়মিত তদন্তের পাশাপাশি র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম ছায়া তদন্ত অব্যাহত রাখবে বলে জানান র‌্যাবের সহকারী পরিচালক (মিডিয়া)  সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ মাহ্মুদুল হাসান মামুন।