২:৩০ এএম, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০, রোববার | | ২৮ জমাদিউস সানি ১৪৪১




পিরোজপুরে শিক্ষকের বিচারের দাবিতে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন

১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০৫:১৮ পিএম | নকিব


মুহাঃ দেলোয়ার হোসাইন, পিরোজপুর প্রতিনিধি : জাতীয় বিশ^বিদ্যালয়ের অধীন অনার্স তৃতীয় বর্ষের পরীক্ষাসহ বিভিন্ন বর্ষের পরীক্ষায় পিরোজপুর সরকারি মহিলা কলেজের প্রভাষক মৌমিতা সরকার ও প্রভাষক মো: জসিম উদ্দিন কর্তৃক পরীক্ষা কেন্দ্রে শিক্ষার্থীদের বিভিন্নভাবে হয়রানী ও অসাচারণসহ নানা ধরনের হুমকির প্রতিবাদে এবং শিক্ষকদের বিচারের দাবিতে মানববন্ধন করেছে শিক্ষার্থীরা। 

বৃহস্পতিবার দুপুরে শহরের টাউন ক্লাব সড়কে সরকারি সোহরাওয়ার্দী  কলেজের শিক্ষার্থীরা মানববন্ধন করে এবং পরে একটি বিক্ষোভ মিছিল পিরোজপুর সরকারি মহিলা কলেজের সামনে গিয়ে শেষ। 

মানববন্ধনে শিক্ষার্থীরা বলেন, পিরোজপুর সরকারি মহিলা কলেজের রাষ্ট্র বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক মৌমিতা সরকার পরীক্ষা কেন্দ্রে দায়িত্ব পালনের সময় পরীক্ষা শেষ হওয়ার এক ঘন্টা আগেই অতিরিক্ত পরীক্ষার উত্তরপত্র নেয়ার জন্য বলেন। 

এক ঘন্টা আগে কেন উত্তরপত্র নিতে হবে এমন প্রশ্নের জবাবরে প্রভাষক মৌমিতা সরকার সে কক্ষে থাকা শিক্ষার্থীদের সাথে খারাপ ব্যবহার করেন এবং দু জনের উত্তরপত্র নিয়ে তাদের পরীক্ষা থেকে বহিষ্কার করা হবে বলে হুমকি দেন।  এক পর্যায়ে অন্য শিক্ষার্থীদের অনুরোধে এবং ভুক্তভোগী দ শিক্ষার্থী কর্তৃক তাদের ভুল হয়েছে এমন মুছলেকা নিয়ে তাদের পরীক্ষা কেন্দ্র থেকে বাহির করে দেয়া হয়। 

এছাড়া প্রভাষক মৌমিতা সরকার পরীক্ষা চলাকালিন সময়ে পরীক্ষার্থীদের সাথে অসচারন ও খারাপ ব্যবহার করার অভিযোগ করেন মানববন্ধনে অংশগ্রহণকারীরা।  এ সময় শিক্ষার্থীরা অভিযুক্ত শিক্ষকের বিচারদাবি করেন। 

মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, পিরোজপুর জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক অনিরুজ্জামান অনিক, শিক্ষার্থী সুমিত মজুমদার, কাদের সিকদার ও হাফসা রহমান।  এ বিষয়ে  প্রভাষক মৌমিতা সরকার জানান, তার বিরুদ্ধে যে সকল অভিযোগ আনা হয়েছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা।  তিনি জাতীয় বিশ^বিদ্যালয়েল পরীক্ষা কেন্দ্রের সকল দায়িত্ব সঠিক ভাবে পালন করে থাকেন। 

সরকারি মহিলা কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মোহাম্মদ শেখ ফরিদ জানান, সরকারি সোহরাওয়ার্দী  কলেজের শিক্ষার্থীদের অভিযোগ মিথ্যা। 
এদিকে ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীরা তাদের অভিযোগ শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দিপু মনির অফিসিয়াল ফেসবুক মেসেন্জারে পাঠালে সে লেভা ফেসবুকে ভাইরাল হয়ে যায়।  এছাড়া শিক্ষার্থীরা তাদের হয়রানি বন্ধের দাবি জানিয়ে পিরোজপুর সরকারি সোহরাওয়ার্দী কলেজের অধ্যক্ষ বরাবরেও আবেদন জানিয়েছে।