৩:৩৪ এএম, ৫ এপ্রিল ২০২০, রোববার | | ১১ শা'বান ১৪৪১




বৃহস্পতিবার শুরু হচ্ছে চট্টগ্রামে বাণিজ্য মেলা

০৩ মার্চ ২০২০, ০৭:১০ পিএম | নকিব


এসএনএন২৪.কম: নগরের পলোগ্রাউন্ড মাঠে বৃহস্পতিবার (৫ মার্চ) শুরু হচ্ছে চট্টগ্রাম চেম্বার আয়োজিত ২৮তম আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা (সিআইটিএফ) ২০২০।  এবারও মেলার পার্টনার কান্ট্রি থাইল্যান্ড। 

ওই দিন বিকেল সাড়ে ৩টায় মাসব্যাপী মেলার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।  বিশেষ অতিথি থাকবেন শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, সংসদ সদস্য এমএ লতিফ, এফবিসিসিআই'র সভাপতি শেখ ফজলে ফাহিম ও সিএমপি কমিশনার মো. মাহাবুবর রহমান। 

মঙ্গলবার (৩ মার্চ) দুপুরে চট্টগ্রাম চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি মাহবুবুল আলম সংবাদ সম্মেলন করে এসব তথ্য জানান। 

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ উপলক্ষে মেলায় ২ হাজার ৩৪০ বর্গফুটের বঙ্গবন্ধু কর্নার থাকবে।  যেখানে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে লেখা বিপুল সংখ্যক বই, তথ্যচিত্র, আলোকচিত্র প্রদর্শনের জন্য থিয়েটার রুম, প্রকাশনা প্রদর্শনের ব্যবস্থা থাকবে।  প্রতি শুক্রবারে বিভিন্ন বিদ্যালয়ের ১০০ শিক্ষার্থীর চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হবে।  তরুণ প্রজন্ম ও শিক্ষার্থীরা বঙ্গবন্ধুর জীবন, স্বাধীনতা সংগ্রাম, আদর্শ ও চেতনা সম্পর্কে ধারণা পাবে। 

মেলার লে আউট নতুনভাবে সাজানো হয়েছে।  যাতে অতিরিক্ত ভিড় না হয়। 

তিনি বলেন, চট্টগ্রামের মানুষ এ মেলার জন্য অপেক্ষা করে।  আমাদের উদ্দেশ্য এ জনপদে উৎপাদিত পণ্যের প্রচার ও প্রসার।  ঢাকার পরে এত বড় বাণিজ্য মেলা দেশের কোথাও হয় না।  এ মেলা ব্যবসায়ীদের স্বার্থে। 

চেম্বার সভাপতি বলেন, অলটারনেট এক্সপোর্ট বাস্কেট খুঁজতে হবে।  নন ট্রেডিশনাল প্রোডাক্ট এক্সপোর্টের বিকল্প নেই।  ২০২১ সালে ৬০ বিলিয়ন রফতানির লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। 

এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, করোনা ভাইরাস সম্পর্কে সচেতন করতে কি করা যায় সে ব্যাপারে চট্টগ্রামের সিভিল সার্জনকে চিঠি দেওয়া হবে। 

আগ্রাবাদের ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারের বঙ্গবন্ধু কনফারেন্স হলে সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন চেম্বারের পরিচালক ও মেলা কমিটির চেয়ারম্যান সৈয়দ জামাল আহমেদ, কো-চেয়ারম্যান একেএম আকতার হোসেন, মো. জহুরুল আলম, অঞ্জন শেখর দাশ, চেম্বার পরিচালক আবদুল মান্নান সোহেল প্রমুখ। 

লিখিত বক্তব্যে সৈয়দ জামাল আহমেদ বলেন, ৪ লাখ বর্গফুটের মেলায় ২০টি প্রিমিয়ার প্যাভিলিয়ন, ৩৩টি প্রিমিয়ার স্টল, ১১৫টি গোল্ড স্টল, ২৮টি মেগা স্টল, ৮টি ফুড স্টল, থাই জোনসহ ৫টি আলাদা জোন নিয়ে ৪৭০টি স্টলে ৪ শতাধিক প্রতিষ্ঠান অংশ নেবে। 

প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত মেলা চলবে।  জনপ্রতি প্রবেশমূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ১৫ টাকা।  প্লে থেকে সপ্তম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের জন্য ৫ লাখ টিকিট বিনামূল্যে দেওয়া হবে।