৮:২৮ এএম, ৩১ মার্চ ২০২০, মঙ্গলবার | | ৬ শা'বান ১৪৪১




আমদানি বন্ধের গুজবে হিলিতে অস্থির হয়ে উঠছে পেঁয়াজের বাজার

১৯ মার্চ ২০২০, ০৪:১০ পিএম | নকিব


সোহেল রানা,হিলি প্রতিনিধিঃ- করোনা ভাইরাসের প্রভাবে আমদানি-রপ্তানি বন্ধ হয়ে যাবে এমন গুজবে হিলিতে  আবারো অস্থির হয়ে উঠছে পেঁয়াজের বাজার। 

একদিনের ব্যবধানে ভারতীয় আমদানিকৃত পেঁয়াজের দাম বেড়েছে কেজিতে ১০ টাকা।  আমদানি বন্ধের অযুহাতে দাম বাড়িয়েছে আমদানিকারকরা বলে অভিযোগ আড়ৎদ্বারদের।  তবে আমদানিকারকরা বলছেন ভিন্ন কথা তাদের দাবি এক কেন্দ্রিক আইপি দেওয়ায় বাজারে বাড়ছে পেঁয়াজের দাম। 

উল্লেখ্য ভারত সরকার পেঁয়াজের উৎপাদন সংকট দেখিয়ে গত বছর ২৮ সেপ্টেম্বর পণ্যটির রপ্তানি বন্ধ করে দেয়।  এরপর থেকে অস্থির হয়ে উঠে পেঁয়াজের বাজার,দাম গিয়ে ঠেকে আড়াইশ টাকার উপরে।  পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধের নাটকীতা শেষে চলতি বছর ১৫ই মার্চ রবিবার ভারত পেঁয়াজ রপ্তানি আবার শুরু করলে দেশের বাজারে অর্ধেকে নেমে যায় পেঁয়াজের দাম। 

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বুধবার হিলি বন্দরের আড়ৎ ও পাইকারী এবংস্থানীয় বাজারে  প্রতিকেজি পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ২৫ থেকে ২৭ টাকা দরে।  সেই পেঁয়াজ আজ বৃহস্পতিবার কেজিতে ১০ টাকা বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ৩৫ থেকে ৩৭ টাকা কেজি দরে।  এদিকে হঠাৎ করে পেঁয়াজের দাম বাড়ায় বিপাকে পড়েছেন পাইকার ও খুচরা বিক্রেতাসহ সাধারন ক্রেতাদের। 

পেঁয়াজ কিনতে আসা কয়েকজন ক্রেতা বলেন,করোনা ভাইরাসের কারনে আমদানি বন্ধ হয়ে যাবে তখন যদি দাম বাড়ে তাই বেশি করে পেঁয়াজ কেনার জন্য আজ এসেছি।  তবে বাজারে গতকালের চেয়ে আজকে দাম বেড়েছে।  আজকে প্রতি কেজি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৩৫ থেকে ৩৭ টাকা কেজি দরে। 

তবে দাম বাড়ার বিষয়টি অস্বীকার করে স্থানীয় বাজারের কয়েকজন খুচরা বিক্রেতা ও আড়ৎদার বলেন,আমদানি বন্ধ হতে পারে তাই আমদানিকারকরা পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধি করে দিয়েছে ।  আমাদেরকে বেশি দামে কিনতে হচ্ছে তাই বেশি দামে বিক্রিও করছি।  তবে আগের চেয়ে আজকে প্রচুর বেচা-কেনা হচ্ছে। 

হিলি স্থলবন্দরের পেঁয়াজ আমদানিকারক নামজুল চৌধুরি জানান,হিলি স্থলবন্দরে এক কেন্দ্রিক আইপি অনুমোদন দেওয়ায় কিছু কিছু আমদানিকারক বাজার পেঁয়াজের সিন্ডিকেট তৈরি করেছে। যার কারনে বাজারে দাম বৃদ্ধি পেয়েছে। সরকার সব আমদানিকারককে যদি সমান ভাবে আইপি দিতো তাহলে বাজারে দাম বাড়তো না। 

হিলি কাস্টমসের তথ্যমতে, গত তিন কার্যদিবসে ভারত থেকে ১ হাজার ৩৬৩টি মেট্রিক টন পেঁয়াজ আমদানি হয়েছে এই বন্দর দিয়ে।