২:৪৩ পিএম, ২ জুন ২০২০, মঙ্গলবার | | ১০ শাওয়াল ১৪৪১




নিজ হাতে কৃষকের ধান কাটে ঘরে পৌঁছে দিচ্ছে কাউন্সিল আজাদ হোসেন

১১ মে ২০২০, ০৬:৫৬ পিএম | নকিব


প্রদীপ শীল, রাউজানঃ নিজ হাতে ধান কেটে কৃষকের ঘরে পৌঁছে দেয়ার এক অন্যোন্য নজির সৃষ্টি করেছেন রাউজান পৌরসভার ৭ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আজাদ হোসেন। 

সারা দেশে যখন ধান কাটার সেলফি নিয়ে সমালোচনার ঝড় উঠে, তখন একজন  জনপ্রতিনিধির ধান কাটার বাস্তব প্রতিচ্ছবি এলাকা জুড়ে ভাইরাল হয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। 

১১ মে সোমবার ৭নং ওয়ার্ড পরিদর্শন ও এলাকার লোকজনের সাথে কথা বলে নিশ্চিত হওয়া যায় গত এক সাপ্তাহ ধরে ধান কাটার বাস্তব একটি চিত্র আজাদ হোসেনের। 

খালি গায়ে, লুঙ্গি পড়ে, গামছা কোমড়ে বেঁধে, খড়ারৌদে যত্ন নিয়ে কৃষকের ভূমিকায় কাউন্সিলর আজাদ আপন মহিমায় ধান কেটে চলেছেন। 

সাথে ছিল আরো কয়েজন রাজনৈতিক সহযোদ্ধা।  তারও আন্তরিক ভাবে ধান কাটছে অবিরত।  এমন মানবতাবাদী জনপ্রতিনিধি সমাজে এখন বিরল। 

জানা যায়, রাউজান পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ডে প্রায় ৩০ শতাংশ লোক কৃষি কাজে জড়িত।  মহামারী কোভিড ১৯ সংক্রামন পরিস্থিতিতে কৃষি কাজের শ্রমিক সংকটে পড়ে কৃষকরা। 

এমন পরিস্থিতিতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দলীয় লোকজনকে কৃষককের ধান কেটে দেয়ার আহবান জানায়। 

একই ভাবে রাউজানের সাংসদ এবিএম ফজলে করিম চৌধুরীও নির্দেশ দেয় কৃষকের ধান কেটে বাড়ি পৌঁছে দেয়ার জন্য।  সাংসদের নির্দেশে উপজেলা যুবলীগ নেতা পৌর কাউন্সিলর আজাদ হোসেন নিজের ওয়ার্ডে দরিদ্র কৃষকের পাশে দাড়িঁয়েছেন। 

সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত টানা ছয় ঘন্টা মাঠে ধান কাটেন তিনি।  দুপুরের পর সময় দেন পৌরসভার অফিসিয়াল কাজ ও এলাকার অন্যান্য কাজ সমূহে। 

ধান কাটা প্রসঙ্গে কাউন্সিলর আজাদ হোসেন জানান, পরিশ্রম সৌভাগ্যের প্রসূতি।  গত কয়েকদিন টানা ধান কেটে মনে হলো কৃষক হলো আমাদের শর্য্যে ভান্ডার।  তারা পরিশ্রম না করলে আমাদের পেটের ভাত যোগার করা সম্ভব হতো না। 

এই শর্য্যে উৎপাদনকারী কৃষকের মাঠে ধান কাটা'টা আমার খুব ভাল লাগছে।  আমি এখন নিয়মিত ধান কাটার কাজে নিয়োজিত থাকবো।  কারণ অনেক কৃষক এখনো ধান ঘরে তুলতে পারেনি। 

বৃষ্টি হলে কৃষক ক্ষতিগ্রস্ত হবে।  তাই সহকর্মীদের নিয়ে চেষ্টা করছি অন্ততপক্ষে আমার ওয়ার্ডের কৃষকদের ধান গুলো কেটে দিতে। 


keya