১১:২৫ এএম, ২৬ মে ২০২০, মঙ্গলবার | | ৩ শাওয়াল ১৪৪১




প্রণোদনা তহবিলের জন্য ৩৬০ দিন মেয়াদি বিশেষ রেপো

১৪ মে ২০২০, ০২:২১ পিএম | নকিব


এসএনএন২৪.কমঃ নভেল করোনা ভাইরাসের (কোভিড-১৯) প্রাদুর্ভাব বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়েছে। 

এর বিরূপ প্রভাব পড়ছে বাংলাদেশের অর্থনীতিতেও।  সমস্যা উত্তরণে সরকার ও বাংলাদেশ ব্যাংক সম্প্রতি বিভিন্ন আর্থিক প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছে। 

এসব প্রণোদনা প্যাকেজ বাস্তবায়নে মুদ্রাবাজারে তারল্য ব্যবস্থাপনা সুষ্ঠুতর করার লক্ষ্যে ৩৬০ দিন মেয়াদি বিশেষ রেপো (পুনঃক্রয় চুক্তি) প্রচলন করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।  আগে থেকে চালু রয়েছে ১ দিন, ১৪ দিন ও ২৮ দিন মেয়াদি রেপো। 

এ বিষয়ে একটি প্রজ্ঞাপন জারি করে সব তফসিলি ব্যাংকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) ও ব্যবস্থাপনা পরিচালকের কাছে পাঠিয়েছে। 

বিদ্যমান রেপো হারকে ভিত্তি ধরে বাংলাদেশ ব্যাংক ঘোষিত মুদ্রানীতি ও মুদ্রা বাজারের তারল্য পরিস্থিতি বিবেচনা করে এ বিশেষ রেপোর (পুনঃক্রয় চুক্তি) সুদের হার ও পরিমাণ বাংলাদেশ ব্যাংকের অকশন কমিটির মাধ্যমে প্রতি অকশনে নির্ধারিত হবে।  অকশনে অকশন কমিটির সিদ্ধান্তই গণ্য হবে চূড়ান্ত বলে। 

‘অংশগ্রহণকারী তফসিলি ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান তার ধারণ করা এসএলআর এর অতিরিক্ত সরকারি সিকিউরিটিজ বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে জামানত রেখে এ অর্থ গ্রহণ করতে পারবে।  উক্ত রেপো লেনদেন এতদ্সংক্রান্ত নিয়মাচার পরিপালন সাপেক্ষে কোলাটেলারাইজড রেপো লেনদেন হিসেবে বিবেচনা করা হবে। ’

আরো জানানো হয়, ট্রেজারি বিল ও বন্ডের অভিহিত মূল্যের উপর যথাক্রমে ১৫ শতাংশ এবং ৫ শতাংশ মার্জিন প্রয়োগ করে অভিহিত মূল্যের অবশিষ্ট অর্থ রেপো হিসেবে দেওয়া হবে।  এরূপ রেপোর বিপরীতে বন্ধকী করা সম্পূর্ণ সিকিউরিটিজ (বাজারমূল্য/অভিহিত মূল্য অনুসারে) দায়যুক্ত হিসেবে বিবেচিত হবে এবং এই সিকিউরিটিজ অন্য কোনো ক্ষেত্রের জন্য জামানত বা সহজে বিনিময়যোগ্য সম্পদ হিসেবে বিবেচিত হবে না। 

এ রেপোর মাধ্যমে গৃহীত অর্থ সম্প্রতি ঘোষিত বিভিন্ন আর্থিক প্রণোদনা প্যাকেজ বাস্তবায়নে বিনিয়োগ করতে হবে।  এ অর্থ বিনিয়োগপূর্বক খাতগুলো উল্লেখ করে মাসিক ভিত্তিতে বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেট ম্যানেজমেন্ট ডিপার্টমেন্টকে অবহিত করতে হবে।  এ রেপোর মাধ্যমে গৃহীত অর্থ বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেট ম্যানেজমেন্ট ডিপার্টমেন্টের পূর্বানুমোদন ব্যতিরেকে সরকারি সিকিউরিটিজ ও বাংলাদেশ ব্যাংক বিলে বিনিয়োগ করা যাবে না। 

প্রচলিত নিয়মানুসারে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ ব্যাংকে বিড দাখিল করবে।  এ নির্দেশনা অবিলম্বে কার্যকর হবে এবং পরবর্তী নির্দেশনা না দেওয়া পর্যন্ত এই ব্যবস্থা বলবৎ থাকবে।