৯:০৩ এএম, ২৫ অক্টোবর ২০২০, রোববার | | ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪২




রাউজান উপজেলা পূজা পরিষদের বার্ষিক সভা ও বস্ত্র বিতরণে ফারাজ করিম চৌধুরী

১৭ অক্টোবর ২০২০, ০৪:১২ পিএম | নকিব


প্রদীপ শীল, রাউজানঃ
রাউজান উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের বার্ষিক সাধারণ সভা ও বস্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

শনিবার (১৭ অক্টোবর)  সকালে রাউজান রাস বিহারী ধামে এই বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়।  উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি ইউপি চেয়ারম্যান প্রিয়তোষ চৌধুরীর সভাপতিত্বে সাধারণ সভা উদ্বোধন করেন উপজেলা আওয়ামীলীগে কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য তরুণ রাজনীতিবিদ ফারাজ করিম চৌধুরী। 

উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সুমন দে'র সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন রাউজান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জোনায়েদ কবির সোহাগ, বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শ্যামল পালিত, প্রধান বক্তা ছিলেন পৌরসভার প্যানেল মেয়র উপজেলা যুবলীগের সভাপতি জমির উদ্দিন পারভেজ, রাউজান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল হারুন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ সভাপতি আনোয়ারুল ইসলাম, সহ সভাপতি ইরফান আহম্মদ চৌধুরী, কামরুল হাসান বাহাদুর, প্রকল্প কর্মকর্তা নিয়াজ মোর্শেদ, উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাবেক সভাপতি পৌর কাউন্সিলর এডভোকেট সমীর দাশ গুপ্ত, এডভোকেট দিলীপ কুমার চৌধুরী, ইউপি চেয়ারম্যান আবদুর রহমান লালু, বিএম জসিম উদ্দিন হিরু, পূজা পরিষদ নেতা ডাঃ সুজিত দত্ত, রবিন্দ্র লাল চৌধুরী, রুনু ভট্টাচার্য, অশোক পালিত, টিপু কান্তি দে, ধীলন মুহুরী, তপন দে, উজ্জ্বল কান্তি দাশ, বিল্পব মহাজন, অঞ্জন চৌধুরী, দিপলু দে দিপু, অনুপ চক্রবর্তী, বিকাশ দাশ গুপ্ত, দীলিপ দে, মিঠু শীল, শিমুল বিশ্বাস, সবুজ দে ভানু, রিগেন শীল, সুশীল রায়, চন্দন মল্লিক, রাজু দে, লিপটন দেবনাথ,  তুহিন গুহ, সমিত্র ভট্টাচার্য, অভি রায়, তীর্থ ধর, রতন পাল প্রমূখ। 

তরুণ রাজনীতিবিদ ফারাজ করিম চৌধুরী বলেন, সব ধর্মে মানব কল্যাণের কথা বলা হয়েছে।  ধর্ম আর মানুষ আলাদা কিছু না।  রাউজানে হিন্দু, বৌদ্ধ ও মুসলিমরা মিলে মিশে সববাস করছি।  আমি মনে করি সংখ্যালঘু শব্দটাই বাদ দেয়া দরকার। 

সংখ্যা গুরু ও সংখ্যালঘু না বলে আমরা বলতে পারি আমরা সবাই মানুষ।  তিনি বলেন, ধর্ম যার যার, দুর্গোৎসব সবার জন্য।  তিনি আসন্ন শারদীয়া দূর্গাপূজার আগাম শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন, আপনারা আমার পিতার দুর্দিনে পাশে ছিলেন।  আপনাদের জন্য কিছু করতে পারলে নিজেকে ধন্য মনে করবো।   অনুষ্ঠানে এক হাজার নারী পুরুষকে শাড়ী ও লুঙ্গি বিতরণ করেন প্রধান অতিথি ও অনুষ্ঠানের উদ্বোধক। 

পরে শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে ২৩২ টি পূজা মন্ডপে সরকারী সরকারী ভোগ্যপণ্য বরাদ্দ বাবদ নগদ অর্থ বিতরণ করা হয়।  এবার প্রতিটি পূজা মন্ডপকে ১৬ হাজার ৫শত টাকা করে দেয়া হয়।