৭:৫৪ এএম, ১ আগস্ট ২০২১, রোববার | | ২২ জ্বিলহজ্জ ১৪৪২




রাউজান পৌরসভা নির্বাচনে মনোনয়ন দৌড়ে আওয়ামীলীগের চার মেয়র প্রার্থী

২২ নভেম্বর ২০২০, ০৫:০৬ পিএম |


প্রদীপ শীল, রাউজানঃ রাউজান পৌরসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে আওয়ামীলীগের সম্ভাব্য হেভিয়েট চার মেয়র প্রার্থী মনোনয়ন নিশ্চিত করতে কেন্দ্রে জোর প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। 

এক মেয়র প্রার্থী কেন্দ্রের পাশাপাশি মাঠ পর্যায়ে ওয়ার্ড ভিক্তিক মতবিনিময় সভা করে নির্বাচনী মাঠ সরব রেখেছেন। 

জানা যায়, আওয়ামীলীগের চারজন, বিএনপি’র দু'জন ও জাতীয় পাটির একজন মেয়র প্রার্থীর নাম শুনা যাচ্ছে।  আওয়ামীলীগের মনোনয়ন দৌড়ে আছেন রাউজান উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি, উপজেলা আওয়ামীলীগেরর কার্যনির্বাহী সদস্য জমির উদ্দিন পারভেজ, রাউজান উপজেলা আওয়ামীরীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফুল ইসলাম চৌধুরী রানা, রাউজান উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক ভাবপ্রাপ্ত সভাপতি, কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাবেক নির্বার্হী সদস্য আ.ম ইয়াছিন মাহামুদ ও বর্তমান মেয়র জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক দেবাশীষ পালিত।  অপরদিকে বিএনপি’র মেয়র প্রার্থী হিসাবে জাফর আহম্মদ চৌধুরী ও সেকান্দর হোসেন চৌধুরীর নাম শুনা যাচ্ছে। 

জাতীয় পাটির প্রার্থী হিসাবে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মেজবাহ্ উদ্দিন আকবরের নাম শুনা যাচ্ছে।  আওয়ামীলীগের সম্ভাব্য প্রার্থী বর্তমান পৌরসভার প্যানেল মেয়র-২ ও উপজেলা যুবলীগের সভাপতি জমির উদ্দিন পারভেজ জানান, আগামী পৌরসভা নির্বাচন অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ণ।  আমি রাউজানের সাংসদের নির্দেশে পৌর এলাকায় কাজ করে যাচ্ছি।  রাজনীতিতে আমি উড়ে এসে জুড়ে বসি নাই।  আমার রাজনৈতিক জীবনে অনেক ঘাত প্রতিঘাত মোকাবিলা করেছি।  আমার শ্রম ও মেধা দিয়ে চেষ্টা করেছি মানবতার কল্যাণে কাজ করতে।  রাজনীতিতে আমি বোঝা হয়ে থাকি নাই।  দলকে শ্রম ও মেধা দিয়ে সাংগঠনিক ভাবে মজবুত করেছি।  প্রধানমন্ত্রী বিচক্ষণ নেত্রী।  তিনি আমার কাজ ও ত্যাগের মুলায়ন করবেন।  আমি আশাবাদী পৌরবাসীর আাশা তিনি পূরণ করবেন। 

পৌরসভার জনগন বিগত ১০ বছর সীমাহীন দুর্ভোগে ছিল।  পরিবর্তন চাই পৌরবাসী।  এলাকার ভোটারা আমাকে বেচেঁ নিয়েছেন।  তাদের যোগ্য সম্মান দিতে প্রার্থী হয়েছি।  আমি কাজ করি মানুষের জন্য।  জনগনই সকল ক্ষমতার উৎস।  রাউজানের সাংসদ আমার রাজনৈতিক অবিভাবক।  তিনি আমাকে মনোনীত করেছেন দলের প্রার্থী হিসাবে।  প্রধানমন্ত্রীও আমাকে নৌকা প্রতিক দিয়ে নির্বাচন করার সুযোগ দিবেন।  বর্তমান মেয়র দেবাশীষ পালিত বলেন, সন্ত্রাসের জনপথ রাউজানকে নিরাপদ জনপদে ফিরে পাওয়ার লড়াইয়ে যৌবনের অনেক সোনালী সময় ব্যয় করেছি।  আমার ত্যাগ ও শ্রম কাহারো অজনা নয়।  রাজনীতির শীর্ষ পর্যায়ে আমাকে জানেন এবং চিনেন।  আমার সাংগঠনিক নেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাকে আবারো মনোনয়ন দিলে আমি নির্বাচন করতে প্রস্তুত।  সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থী রাউজান উপজেলা আওয়ামীরীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফুল ইসলাম চৌধুরী রানা জানান, গত নির্বাচনে বর্তমান মেয়রের সাথে আমি মেয়র প্রার্থী হয়েছিলাম।  তখন নির্বাচনের মাত্র কয়েকদিন আগে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিদের্শে কেন্দ্রীয় নেতারা চট্টগ্রাম সার্কিট হাউসে এসে আমার সাথে বৈঠক করে নির্বাচন থেকে সরে দাডাঁনোর আহবান জানান।  আমি দলের প্রতি সম্মান রেখে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ায়।  তখন শীর্ষ নেতারা আমাকে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন ২০২০ সালের পৌর নির্বাচনে দলের থেকে মনোনয়ন দেওয়া হবে।  এসময় চট্টগ্রামের র্শীষ নেতারাও উপস্থিত ছিলেন। 

আমি বিগত পাঁচ বছর পৌরবাসীর সাথে সুখে দুঃখে ছিলাম।  আমি পরিচ্ছন্ন রাজনীতি করেছি।  দলের নাম ভাঙ্গিয়ে কোন অন্যায় কাজ করি নাই।  আমি আমার পিতা রাউজান আওয়ামীলীগের আমৃত সভাপতি শফিকুল ইসলাম চৌধুরী বেবীর আদর্শে বড় হয়েছি।  মাননীয় প্রধানমন্ত্রী  আমার পরিবার ও আমার রাজনৈতিক অবস্থান বিশ্লেষন করে নৌকা প্রতিকে মনোনয়ন দিবেন এটাই আমি আশাবাদী। 

সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থী আ.ম ইয়াছিন মাহমুদ বলেন, আমার ছাত্র জীবনে ছিল আদর্শিক রাজনীতির লড়াই।  আমার দীর্ঘ রাজনীতি জীবনে নীতি আদর্শ থেকে বিচ্ছ্যুত হয়নি।  কোন সময় সাকা পরিবারের সাথে আপোষ করি নাই ভবিষতেও করবো না।   বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা  নির্মানে জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আন্দোলন সংগ্রাম করেছি। 

আমার নেত্রীর কাছে রাউজান পৌরসভার মেয়র পদে দলের মনোনয়ন চাইবো।  তিনি যদি মনে করেন আমি যোগ্য, তাহলে অবশ্যই নৌকা প্রতিক নিয়ে নির্বাচন করে জনগনের সেবা করতে প্রস্তুত আছি।