৮:২৬ এএম, ২৮ নভেম্বর ২০২১, রোববার | | ২২ রবিউস সানি ১৪৪৩




নগরীতে গণপরিবহনে চলছে ভাড়া নৈরাজ্য মানছে না বিআরটিএ’র নির্দেশনা

১৮ নভেম্বর ২০২১, ১২:৫৪ পিএম |


নকিব ছিদ্দিকী:

চট্টগ্রাম নগরীতে প্রতিদিন চলছে গণপরিবহন।  নগরীর বিভিন্ন সড়কে ডিজেল চালিত বাসের পাশাপাশি সিএনজিচালিত বাসগুলোতে অতিরিক্ত ভাড়া নেয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ যাত্রীদের। 

তার মাঝে গেল কয়েকদিনের মধ্যে বাসে যাত্রীদের সঙ্গে চালকদের বাগ্বিতণ্ডাও দেখা গেছে এবং বাস থেকে যাত্রীকে ফেলে দেওয়ার ঘটনাও শুক্রবার রাত সোয়া ৯টার দিকে লালখান বাজার ইস্পাহানি মোড়ে এ ঘটনা ঘটে।  যাত্রীকে ফেলে দিয়ে বাসটি নিয়ে পালানোর চেষ্টা করে বাসের চালক।  কিন্তু অন্য যাত্রীরা টাইগারপাস এলাকায় বাসটি আটক করে।  পরে ঘটনাস্থলে পুলিশ আসে।  এ ঘটনায় বাসের চালক ও তার সহকারীকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে। এদিকে জরিপে দেখা যায়, চট্টগ্রাম ও ঢাকা নগরীতে চলাচলকারি বেশিরভাগ বাসই সিএনজিচালিত

তবে সরকারি নতুন প্রজ্ঞাপনে শুধুমাত্র ডিজেলচালিত গাড়ির ভাড়া বাড়ানো হয়েছে।  গ্যাসচালিত গাড়ি চলবে আগের ভাড়া অনুযায়ী।  কিন্তু যাত্রীদের অভিযোগ, এখন সব গাড়িই ভাড়া বাড়িয়ে দিয়েছে।   নগরীর মুরাদপুরে থেকে আতুরারডিপুগামী যাত্রী দিদার আলম বলেন, টেম্পোগুলো গ্যাস দিয়ে চলে।  তাহলে কোন  ৫ টাকা ভাড়া ১০ টাকা আদায় করা হলো।  বাসেও দেখা গেলো একই অবস্থা।  ভাড়া বাড়ানোর সিন্ডিকেট এটা ওদের অনেক আগ থেকে।  এমনকি ভাড়া ওদের মন মত না দিলে হুমকি ধমকি ও করে।  এ নিয়ে একটা ব্যবস্থা নেয়া দরকার।  

সরেজমিনে দেখা যায় শুধু টেম্পোও নয়, নগরীর বিভিন্ন রুটের বাস ও মিনিবাসগুলোর অধিকাংশ গ্যাসে চলে।  অথচ তারাও ডিজেলচালিত বাসের সাথে পাল্লা দিয়ে যাত্রীদের কাছ থেকে বাড়তি ভাড়া আদায় করছে।  সুত্রে জানা যায়, সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ঢাকা ও চট্টগ্রাম মহানগরীতে চলাচলকারী বাস ও মিনিবাসের ক্ষেত্রে প্রতি কিলোমিটার ভাড়া যথাক্রমে ১ টাকা ৭০ পয়সার স্থলে ২ টাকা ১৫ পয়সা ও ১ টাকা ৬০ পয়সার স্থলে ২ টাকা ৫ পয়সা করা হয়েছে।  বাস ও মিনিবাসের ক্ষেত্রে সর্বনিম্ন ভাড়া যথাক্রমে ৭ টাকার স্থলে ১০ টাকা ও ৫ টাকার স্থলে ৮ টাকা করা হয়েছে । 

এ বিষয়ে জানতে চাইলে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন বাস মালিক সমিতির সভাপতি বেলায়েত হোসেন বেলাল জানান, সাধারণ মানুষের ভোগান্তির কথা চিন্তা করে পুরোদমে নগরীর বিভিন্ন রুটে আমাদের গাড়ি চলছে।  বাস ভাড়া নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে।  আমরা চাই না নগরবাসী কোন ভোগান্তিতে পড়ুক।  আবার দেখা গিয়েছে কিছু মালিক দায় এড়ানোর জন্য সরাসরি চালকদের দোষ দিচ্ছে ।