৮:১১ এএম, ১৯ জুন ২০২৪, বুধবার | | ১২ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫




পঞ্চগড় -১ আসনে আ.লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী নাইমুজ্জামান মুক্তা

১১ নভেম্বর ২০১৮, ০২:৩৯ পিএম | জাহিদ


এম.মোবারক হোসাইন, পঞ্চগড় : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে পঞ্চগড়-১ আসন থেকে মনোনয়ন ফরম কিনেছেন  প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এটুআই প্রকল্পের জনপ্রেক্ষিত বিশেষজ্ঞ নাঈমুজ্জামান মুক্তা। 

শুক্রবার রাজধানীর ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ের নির্বাচনী অফিস থেকে তার মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেন।  এ দিকে নাইমুজ্জামান মুক্তার মনোনয়ন ক্রয়কে কেন্দ্র করে উচ্ছ্বসিত স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। 

স্থানীয় কয়েকজন প্রবীণ রাজনৈতিক জানান, পঞ্চগড় ০১ আসনের উন্নয়নের জন্য তিনি ইতোমধ্যে কেমন হবে স্বপ্নের পঞ্চগড় শিরোনামে নিজের প্রস্তাবনা  ছাড়াও বিগত ছয় মাস ধরে জেলার বিভিন্ন প্রান্ত ঘুরে ঘুরে বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষের সাথে কথা বলে স্বপ্ন কুড়ানোর আঙ্গিনা থেকে প্রাপ্ত তথ্য দিয়ে তিনি তৈরী করেছেন এমন প্রস্তাবনা। 

তাছাড়া তিনি সাধারন মানুষের  খুব কাছে গিয়ে কাজ করছেন এবং তিনি একজন শিক্ষিত নেতা।  আমরা আশাবাদী দলের সভানেত্রী তাকে নৌকা মার্কায় মনোনয়ন দিলে পঞ্চগড়-১ আসনে নিশ্চিত  জয়ী হবেন। 

পঞ্চগড়-১ আসনের মনোনয়ন প্রত্যাশী নাইমুজ্জামান মুক্তা  বলেন, প্রাকৃতিক সৌন্দর্য, পুরাতাত্ত্বিক স্থান ও ভৌগোলিক কারণে পর্যটন শিল্পের অপার সম্ভাবনাময় ক্ষেত্র পঞ্চগড়।  বার আউলিয়া মাজার শরিফ, ভিতরগড় দূর্গনগরী, মির্জাপুর শাহী মসজিদ, গোলকধাম মন্দির এবং চা বাগান, মহানন্দা ও করতোয়ার অপার সৌন্দর্যকে কেন্দ্র করে পঞ্চগড়কে গড়ে তুলতে চাই বিনোদন ও পর্যটন নগরী হিসেবে। 

এ উপমহাদেশের পর্যটন কেন্দ্র নেপাল, ভুটান ও দার্জিলিং এর সাথে পঞ্চগড়কে যুক্ত করে আমরা গড়ে তুলতে চাই ‘পর্যটন হাব’।  দেশ ও বিদেশের পর্যটকদের আগমনে পঞ্চগড়ের অর্থনীতি সচল হবে, এখানকার সৌন্দর্য বৃদ্ধি পাবে-এই আমাদের স্বপ্ন।  হোয়াংহো নদী যেমন করে একসময় চায়নার দুঃখ ছিল।  কিন্তু যা আজ তাদের সম্পদে পরিণত হয়েছে এবং পর্যকদের তীর্থ কেন্দ্র হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছে।  তেমনি করে করতোয়াকে আমরা গড়ে তুলতে চাই জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র এবং পর্যটকদের আকর্ষণীয় স্থান হিসেবে। 

তিনি  বলেন, পঞ্চগড়ে রয়েছে আমাদের ঐতিহ্যবাহী সংস্কৃতি।  সংরক্ষনের অভাবে তা হারিয়ে যেতে বসেছে।  যে কোন মূল্যে আমাদের পঞ্চগড়ের হুলির ধাম, পালাগান, কুয়ালীর গান, বিয়ের গীত ইত্যাদি আমরা রক্ষা করতে চাই, বাঁচিয়ে রাখতে চাই।  আমাদের বিশেষ খাবার যেমন সিদল, পেলকা, সেলকা, রাশা, লাফা শাকের কাঞ্জি ইত্যাদি আমরা কোনভাবেই হারিয়ে যেতে দেবনা।  আমরা তিল রফতানী করি, প্রচুর পান উৎপন্ন হয় আমাদের পঞ্চগড়ে। 

আমাদের শীতকালীন টমেটো বাজারজাতকরণ সমস্যা ও সংরক্ষনের অব্যবস্থার কারণে নষ্ট হয়।  আমি নজর দিতে চাই এসব কৃষিপণ্য উৎপাদনকারী কৃষকদের প্রতি।  পঞ্চগড়ের অর্থনীতির ভিত্তি হতে পাবে কৃষিপণ্য ও কৃষি শিল্প।  টমেটো কেন্দ্রিক কৃষি শিল্প ও হিমাগার নির্মাণের মাধ্যমে ফিরিয়ে আনা সম্ভব কৃষকদের স্বচ্ছলতা। 

ঘরের দরজায় স্থলবন্দর থাকায় তিল, পান, টমেটো রফতানির আয় থেকে প্রাপ্ত প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা পাল্টে দেব পঞ্চগড়ের মানুষের জীবন যাত্রার মান। 

তিনি আরো বলেন, ১১তম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকা প্রতিক নিয়ে যেই আসুক না কেন পঞ্চগড়ে তার হাতে তুলে দেয়া হবে এই প্রস্তাবনা।  বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বিনির্মাণে তারই কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ১১তম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগকে জয়ী করার আহবান জানান। 


keya